মেইন ম্যেনু

বিন লাদেন বেঁচে আছেন?

ওসামা বিন লাদেন বেঁচে আছেন- বিশ্বাস করা খুবই কঠিন। কিন্তু এডওয়ার্ড স্নোডেন দাবি করেছেন, বিন লাদেন বেঁচে আছেন। ফলে তার বেঁচে থাকা, না-থাকা নিয়ে একধরনের ধূম্রজাল থেকেই যাচ্ছে।

বিশ্বজুড়ে যুক্তরাষ্ট্রের গোপন নজরদারির তথ্য ফাঁস করে দিয়ে আলোড়ন সৃষ্টিকারী স্নোডেন এখন রাশিয়ায় অবস্থান করছেন। মস্কো ট্রিবিউনকে সম্প্রতি তিনি একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। এই সাক্ষাৎকারে বিন লাদেন বেঁচে আছেন বলে তিনি দাবি করেছেন। ওয়ার্ল্ডনিউডেইলিরিপোর্ট ডট কম নামে একটি অনলাইন সংবাদপত্রে এ-সম্পর্কিত খবর প্রথম প্রকাশ করা হয়।

প্রকাশিত খবরমতে স্রোডেনের বক্তব্য এ রকম-‘আমার কাছে প্রমাণ আছে, বিন লাদেন এখনো সিআইএর প্যারোলো রয়েছেন। প্রতি মাসে তিনি ১ লাখ মার্কিন ডলার গ্রহণ করেন। ব্যবসায়ী ও কিছু সংস্থার মাধ্যমে তার অ্যাকাউন্টে অর্থ পাঠানো হয়ে থাকে। এখন তিনি কোথায় আছেন, তা ঠিক আমি জানি না। তবে ২০১৩ সাল পর্যন্ত বাহামা দ্বিপপুঞ্জে ছিলেন বিন লাদেন। সঙ্গে তার পাঁচ স্ত্রী ও ছেলেমেয়ে ছিল।’

স্রোডেন এখন ফেরারি। যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার (এনএসএ) নজরদারির তথ্য ফাঁস করার পর দেশ ছাড়েন তিনি। এর পর এমন কিছু তথ্য ফাঁস করেছেন তিনি, যা যুক্তরাষ্ট্রকে বেকায়দায় ফেলেছে।

এদিকে খবরে বলা হয়েছে, এর আগেও বিন লাদেনকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগ তুলেছেন স্রোডেন। কিন্তু সেসব অভিযোগ খবরে আসেনি।

স্রোডেন বলতে যাচ্ছেন, বিন লাদেনের মৃত্যু নিয়ে মিথ্যাচার করছে যুক্তরাষ্ট্র। তাকে সিআইএ তুলে নিয়ে বাহামা দ্বীপপুঞ্জে গোপন কোথাও রেখেছে। তার সঙ্গে তার পরিবারের সদস্যরাও আছে।

আগামী সেপ্টেম্বরে স্রোডেনের একটি বই প্রকাশিত হতে যাচ্ছে। তিনি জানিয়েছেন, এই বইয়ে বিন লাদেন যে বেঁচে আছেন, সে সম্পর্কিত তথ্যপ্রমাণ থাকবে। তবে স্রোডেনের এই দাবি নিরপেক্ষ কোনো সূত্র থেকে যাচাই করা সম্ভব হয়নি এবং অন্য কেউ এখনো এমন দাবি করেনি।

বিন লাদেনকে নিয়ে ওয়ার্ল্ডনিউডেইলিরিপোর্ট ডট কমে স্রোডেনের যে উদ্ধৃতি দেওয়া হয়েছে, তার কিছু অংশ হুবহু আওয়ার নিউজ বিডি’র পাঠকদের জন্য দেওয়া হলো-

“Osama bin Laden was one of the CIA’s most efficient operatives for a long time. What kind of message would it send their other operatives if they were to let the SEALs kill him? They organized his fake death with the collaboration of the Pakistani Secret services, and he simply abandoned his cover. Since everyone believes he is dead, nobody’s looking for him, so it was pretty easy to disappear. Without the beard and the military jacket, nobody recognizes him.”

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, বিন লাদেনকে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদের একটি বাড়িতে গুলি করে হত্যা করে মার্কিন নৌকমান্ডো। তার লাশ সাগরে ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিন লাদেনকে হত্যার সেই অভিযান নিয়ে খোদ যুক্তরাষ্ট্রেই একেকজন একেক রকম তথ্য দিয়েছেন। তবে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের কাছে বিন লাদেন নিহত। আল-কায়েদার প্রাক্তন এই নেতাকে গণমাধ্যমে ‘প্রয়াত বা নিহত’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।