মেইন ম্যেনু

বিপজ্জনক টেইলরকে ফেরালেন রাব্বি

উইকেটে আসার পর থেকেই আক্রমণাত্মক ছিলেন রস টেইলর। তাকে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানিতে টাইগার শিবিরে হাসি ফুটিয়েছেন কামরুল ইসলাম রাব্বি। ওয়েলিংটন টেস্টে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে তোলা ৫৯৫ রানের পাহাড়সম বোঝা মাথায় নিয়ে জবাব দিতে নেমে আক্রমণাত্মক ব্যাটিংকে মূলমন্ত্র বানিয়েছে নিউজিল্যান্ড। প্রতিপক্ষের তিনটি উইকেট তুলে নিলেও তাই রানের গতিতে লাগাম পরাতে ব্যর্থ টাইগার আক্রমণ। অথচ সফরকারী ব্যাটসম্যানরা টানা তৃতীয় দিনের মত নিজেদের আধিপত্য ধরে রাখার পরের কাজটা ছিল বোলারদেরই। প্রয়োজন ছিল দ্রুত কয়েকটি উইকেট তুলে নিয়ে কিউইদের চাপে ফেলার। তাতে উল্টো স্বাগতিকদের প্রতিরোধের মুখে পড়েছে বাংলাদেশ।

ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে শনিবার এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৪৭.২ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ২০৫ রান তুলেছে নিউজিল্যান্ড। উইকেটে আছেন টম ল্যাথাম ৭৫ ও হেনরি নিকোলস শূন্য রানে।

জবাব দিতে নেমে নিউজিল্যান্ড অবশ্য দারুণ শুরুই করেছিল। জিত রাভাল ও টম ল্যাথাম উদ্বোধনীতে ৫৪ রান যোগ করেন। লাঞ্চের কিছু আগে কামরুল ইসলাম রাব্বির মাধ্যমে প্রথম আঘাতে পায় তারা। রাব্বির করা ১৭তম ওভারের প্রথম বলে কাট করতে যেয়ে রাভাল ক্যাচ দিয়েছেন। মুশফিকের চোটের কারণে কিপিং-গ্লাভস হাতে নেওয়া ইমরুল কায়েসকে ক্যাচ দিয়ে ফেরার আগে ২৭ রান করেছেন কিউই ওপেনার।

পরে কেন উইলিয়ামসনকে নিয়ে ৭৭ রানের আরেকটি প্রতিরোধ গড়েন ল্যাথাম। যাতে বাধা হয়ে দাঁড়ান তাসকিন আহমেদ। দারুণ এক গুড লেংথ বলে স্বাগতিক অধিনায়ককে নিজের প্রথম টেস্ট শিকার বানিয়ে টাইগার শিবিরে হাসি ফুটিয়েছেন অভিষিক্ত এই পেসার। অবশ্য টেস্টে নিজের প্রথম ওভারেই উইকেট পেতে পারতেন তাসকিন! সাব্বির স্লিপে রাভালের ক্যাচ ছাড়ায় তা আর হয়নি। ফেরার আগে উইলিয়ামসন ৮ চারে ৫৫ বলে ৫৩ রানের ঝলমলে একটি আক্রমণাত্মক ইনিংস খেলেছেন।

এর আগে ৭ উইকেটে ৫৪২ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করে সাব্বির রহমানের অপরাজিত ফিফটিতে ছয়শর কাছে পৌঁছায় বাংলাদেশ। সিরিজের প্রথম টেস্টে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেটে ৫৯৫ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে টাইগাররা। সাব্বির ৫৪ রানে অপরাজিত ছিলেন।

দলীয় সংগ্রহটা বড় করতে দিনের সকালে ব্যাটিংয়ে নামেন সাব্বির রহমান ও তাসকিন আহমেদ। ছোট অথচ কার্যকরী জুটির পর তাসকিন (৩) ফিরে গেলেও কামরুলকে (৬*) নিয়ে আরেকটি দারুণ জুটি গড়েন সাব্বির। তাতেই টেস্ট নিজের দ্বিতীয় ফিফটির দেখা পান। সাব্বির ফিফটি করার কিছুক্ষণ পরই অবশ্য ইনিংস ঘোষণা করেন মুশফিক। শেষ পর্যন্ত ৮৬ বলে ৭ চারে ৫৪ রানে অপরাজিত ছিলেন সাব্বির।

আগেরদিন নিউজিল্যান্ডের বোলারদের কাঁদিয়ে সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহীম যেকোনো উইকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ৩৫৯ রানের রেকর্ড জুটি গড়েছেন। সাকিব ২১৭ ও মুশফিক ১৫৯ রানের ঝলমলে কাব্যিক ইনিংস উপহার দেন। তাতেই বড় সংগ্রহের ভিত পায় বাংলাদেশ।

পঞ্চম উইকেটে ৩৫৯ রানের নান্দনিক জুটি গড়ার পথে বাংলাদেশের হয়ে টেস্টে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলা সাকিব ২৭৬ বলে ৩১টি চারের সাহায্যে ২১৭ রান করেন। আর জুটি সঙ্গী মুশফিক করেন ১৫৯ রান। এছাড়া মুমিনুল হক ৬৪ ও তামিম ইকবাল করেছেন ৫৬ রান।

প্রথম ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের হয়ে নেইল ওয়াগনার ৪টি উইকেট নিয়ে সেরা বোলার। এছাড়া ট্রেন্ট বোল্ট ও টিম সাউদি নিয়েছেন ২টি করে উইকেট।

টেস্টের কোনো ইনিংসে এটা বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ। ২০১৩ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের করা ৬৩৮ রান এখনো সবার ওপরে। শনিবার পেছনে পড়ে যায় ঢাকা টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে করা ৫৫৬ রান।