মেইন ম্যেনু

“বিপথগামী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে”

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর আমীর মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেছেন, আইনশৃঙ্খলায় নিয়োজিতদের মধ্যে কতিপয় বিপদগামী পুলিশ কর্তৃক নারী পুরুষকে হয়রানী, গুলি, হত্যা বন্ধ হচ্ছে না।

সম্প্রতি চা দোকানীকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যার পর গতকালও পুলিশ অনর্থক অসহায় এক রিকসা চালককে পায়ে গুলি করে চরম অমানবিকতার পরিচয় দিয়েছে। এধরনের ঘটনা কিছুতেই মেনে নেয়া যায় না।

তিনি বলেন, সরকার পুলিশের এধরণের অপকর্ম বন্ধ করতে কঠিন ব্যবস্থা না নিলে দেশ পুলিশী ব্যবস্থায় চলছে এটাই প্রমাণিত হবে। অবিলম্বে এসব বিষয়ে কার্যকর সিদ্ধান্ত নিতে হবে। অন্যথায় সরকারের জন্য শুভ ফল বয়ে আনবে না।

বিবৃতিতে পীর সাহেব আরও বলেন, আমাদের সমাজে অনেক মানুষ অন্যায়ভাবে হয়রানী ও জুলুমের শিকার হচ্ছে। প্রতিনিয়ত মিডিয়ায় এধরণের ঘটনা ফলাও করে প্রচার হচ্ছে। এধরণের অন্যায় ও জুলুম থেকে বাঁচতে হলে সকলকে ইসলামের পথে ফিরে আসতে হবে।

ইসলামী আন্দোলন ঢাকা মহানগর
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরী সভাপতি অধ্যাপক এটিএম হেমায়েত উদ্দীন বলেছেন, ইসলামের সুমহান আদর্শ সকল মানুষের কাছে তুলে ধরে সকলকে ইসলামে ফিরিয়ে আনতে হবে। প্রচলিত শাসনব্যবস্থা গণমানুষের মুক্তি দিতে পারেনি। ফলে সমাজের সর্বত্র অশান্তি বিরাজ করছে। সর্বত্র সন্ত্রাস ও দুর্নীতির করালগ্রাসে নিমজ্জিত। সমাজের সব জায়গায় চরম অন্ধকার নেমে এসেছে।

এমতাবস্থায় সমাজে ইসলামের আলো প্রজ্জ্বলিত করতে এবং দুর্নীতি, মাদকাসক্ত ও বিকারগ্রস্ত লোক সমাজ ও রাষ্ট্রে থেকে অপসারণ করে একটি আদর্শ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে দাওয়াতী মাসের কার্যক্রম পরিচালনা করা সকলের কর্তব্য। শান্তি, ইনসাফ ও অধিকার ফিরে পেতে ইসলামের বিজয় করা প্রয়োজন।

আজ বিকেলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে দেশব্যাপী দাওয়াতী মাসের কার্যক্রম পর্যালোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন, সেক্রেটারী মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মুহা. মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।

এদিকে ঢাকা মহানগরীর সব থানায় দাওয়াতী সভা এবং সদস্য অভিযান কার্যক্রম চলছে। এতে ব্যাপক সাড়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে।