মেইন ম্যেনু

বিপদ যখন ভাতের থালায়!

ভাত ছাড়া বাঙালির একটা দিনও চলে না। কিন্তু চিকন চাল বলে যেটা কিনছেন, জানেন কি তা আসলে কী? চালের কোনো পুষ্টিগুণ কি আদৌ পাচ্ছে আপনার বাচ্চা? বিশেষজ্ঞরা বলছেন চিকন চালেই যত গণ্ডগোল। বারবার পালিশে সেই চালে পুষ্টিগুণও নষ্ট হয়ে যায়!

আমার সন্তান যেন থাকে দুধে ভাতে। যুগযুগান্ত ধরে বাঙালির এই একটাই আকাঙ্খা, একটাই প্রার্থনা। কিন্তু সেই এক থালা গরম ভাতেই এখন অন্য বিপদ!

চকচকে লম্বা চিকন চাল। বাঙালির আভিজাত্য, সম্বৃদ্ধির স্টেটাস সিম্বল। বাজারে খুঁজে পাওয়া যায় জিরেকাঠি, বাঁশকাঠির মতো হাজারও রকমের চাল। কিন্তু চকচকে যে চাল আপনি কিনছেন সেটা সত্যিই চিকন চাল তো? নাকি মোটা চালগুলোকে পালিশ করে চিকন করা হয়েছে।

চাল মানে কী শুধুই এক থালা ভাত? চালের পুষ্টিগুণও কিন্তু কম নয়। চালের পুষ্টি গুণ থাকে তার উপরের পাতলা খোসাতে। চালে প্রচুর ভিটামিন বি কমপ্লেক্স থাকে। আয়রন, জিঙ্গের মতো প্রয়োজনীয় খনিজও রয়েছে চালে। এমনকি বহু চালে ক্যান্সার প্রতিরোধক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টও থাকে। এছাড়া চালে রয়েছে প্রচুর শর্করাও। তবে মিলে বারবার পালিশ করার ফলে এই পুষ্টিগুণের কোনোটাই আর চালে অবশিষ্ট থাকে না।

গবেষকরা বলছেন সাবেক কালের ঢেঁকি ছাটা একটু মোটা চালের ভাতে এই পুষ্টিগুণ পুরোটাই বজায় থাকে। তার উপর মোটা চাল খেতেও মিষ্টি আর সুস্বাদু। কৃষকের বাড়িতে ধান সেদ্ধ করে চাল তৈরি এখন উঠেই গেছে। গ্রামে গঞ্জে এখন খোঁজ করে ঢেকিও পাওয়া যায় না। তাহলে উপায়? বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভাতেও বদল আনুন। সারা বছর দুধ সাদা সরু ভাত না খেয়ে মাঝে মধ্যে ট্রাই করুন মোটা লালচে চালও।-জিনিউ