মেইন ম্যেনু

বিপুল পরিমাণ বাংলাদেশি দুই টাকার নোট পাচারের চেষ্টা

মুদ্রা পাচার বলতে এতদিন ধরে সবাই ডলার, পাউন্ড, ইউরো বা নানা দেশের বিদেশী মুদ্রার নাম শুনে আসছেন। বিদেশে ভোগ বিলাস বা অবৈধ অর্থ পাচারে এগুলোই ব্যবহার করা হয়।

কিন্তু বৃহস্পতিবার শাহজালাল বিমান বন্দর দিয়ে পোস্টাল সার্ভিসের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ বাংলাদেশি দুই টাকার নোট পাচারের চেষ্টা হয়েছে।

একটি পোস্টাল পার্সেলে করে হংকংয়ের ঠিকানায় মোট ২৪টি প্যাকেটে ২৪ হাজার দুই টাকার নোট পাঠানো হচ্ছিল। প্রতি প্যাকেটে ছিল ১ হাজার দুই টাকার নোট।

পার্সেলে ঢাকার যাত্রাবাড়ীর ডা. রেদওয়ান নামের একজনের ঠিকানা লেখা রয়েছে। প্রাপকের জায়গায় লেখা রয়েছে হংকংয়ের বাও রুই নামের একজনের ঠিকানা।

আরেকটি পার্সেলে ৪টি প্যাকেটে মোট ৪ হাজার দুই টাকার নোট ছিল। সেটির প্রাপকের ঠিকানা লেখা রয়েছে শেইফেঙ জিন, বেইজিং, চীন।

সবমিলিয়ে বাংলাদেশি ৫৬ হাজার টাকা।

তবে পাচারের এই চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়েছে শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃপক্ষ। কাস্টমস গোয়েন্দার ফেসবুক পাতায় এই ঘটনার বিবরণ তুলে দেয়া হয়েছে।

শুল্ক গোয়েন্দারা বলছেন, পোস্টাল পার্সেলে এইভাবে বাংলাদেশি মুদ্রা প্রেরণ করা যায় না। এতে বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইন ভঙ্গ হয়েছে। ঘোষণা ছাড়া এই টাকা প্রেরণ করায় শুল্ক আইনে মিথ্যা ঘোষণার অপরাধ সংঘটিত হয়েছে।

কি কারণে, কি উদ্দেশ্যে এসব নোট পাচার করা হচ্ছিল, সেটি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে বলেও তারা জানিয়েছেন।-বিবিসি বাংলা