মেইন ম্যেনু

বিলাসবহুল প্রাসাদে রাজার হালেই দিন কাটছে গেইলের

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটাররা অন্য দেশের ক্রিকেটারদের চেয়ে একটু বেশিই আমোদপ্রিয়। তাদের অনেকেই উপলক্ষ খোঁজেন আনন্দ-উল্লাসে মেতে ওঠার।

ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে ক্রিকেট এতটা জনপ্রিয় হয়ে ওঠারও এই একটা কারণ। মাঠে ক্রিকেটাররা খেলবে আর গ্যালারিতে হই-হুল্লোড়, আনন্দ-আমোদে সময় কাটিয়ে দেবে দর্শকরা। যাকে নাম দেয়া হয়েছিল ক্যালিপসো সূর।

ক্যারিবিয়ান অঞ্চলে ক্রিকেটের স্থানটা দখল করে নিচ্ছে ফুটবল এবং অ্যাথলেটিক্স। তবুও ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা যেন কম নেই। দর্শকদের মত ক্রিকেটাররা বেশ আমুদে।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সেরা বিজ্ঞাপন, ব্যাটিং দানব ক্রিস গেইল অবশ্য আমুদে জীবনযাপনের দিক দিয়ে ছাড়িয়ে গেছেন অন্য সবাইকে।

বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন টি-টোয়েন্টি লিগ খেলে তিনি যেমন প্রচুর অর্থ উপার্জন করছেন, তেমনি মেতে উঠেছেন উদ্দাম জীবনযাপনেও। নিজের দেশ জ্যামাইকায় গেইল বানিয়েছেন এক বিলাসবহুল বাড়ি।

বাড়ি না বলে রাজপ্রাসাদের সঙ্গে তুলনা করলেই বরং ভালো। সেখানে সময় পেলেই বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে গেইল মেতে ওঠেন আনন্দ-উল্লাসে। আধুনিক জীবনযাপনের সব উপকরণ যে সেখানে মজুদ আছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

তবে গেইল সবাইকে অবাক করে দিয়েছেন নিজের বাড়িতে একটা স্ট্রিপ ক্লাব বানিয়ে। নগ্ন-নৃত্যের এই ক্লাবগুলো সাধারণত দেখা যায় উন্নত বিশ্বের বড় বড় শহরে।

ইনস্টাগ্রামে এই স্ট্রিপ ক্লাবের ছবি পোস্ট করে গেইল লিখেছেন, ‘আপনার বাড়িতে যদি কোনও স্ট্রিপ ক্লাব না থাকে, তাহলে আপনি কোনও ক্রিকেটারই নন। আমি চাই, আমার বাড়িতে এসে অতিথিরা যেন সময়টা উপভোগ করতে পারেন।’

বডসড় একটা সুইমিং পুল আর ব্যায়ামাগার তো আছেই। এ ছাড়া শোবার ঘরটি গেইল বানিয়েছেন বিশেষ কায়দায়। বিছানার ওপরের ছাদের পুরোটা আয়নায় ঢাকা। গেইলের ভাষায় যেটা ‘হাংকি পাংকি’ বিছানা। শুধু বাড়ি নয়, গাড়িও তার পছন্দ। ইনস্টাগ্রামে প্রায়ই নিজের দামি গাড়িগুলোর ছবি পোস্ট করে থাকেন এই আক্রমণাত্মক ব্যাটসম্যান।