মেইন ম্যেনু

বিশাল কর ফাঁকির তালিকায় মেসি

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের যে রাষ্ট্রপ্রধান, ধনী ও ক্ষমতাবান ব্যক্তিরা বিভিন্ন কায়দায় কর ফাঁকি দিয়ে নিজেদের সম্পদকে গোপন তাদের তালিকায় নাম রয়েছে আর্জেন্টিনা ও বার্সা ফুটবল সুপারস্টার লিওনেল মেসির নাম।

পানামার আইনি প্রতিষ্ঠান মোসাক ফনসেকা ওই গোপন নথি ফাঁস করে। যাতে মেসি ছাড়াও ফিফার সাবেক কর্মকর্তাদেরও নাম রয়েছে।

এই গোপন নথি ফাঁস হওয়ার আগেও অবশ্য মেসির বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ উঠেছে তার বাবার বিরুদ্ধেও এ নিয়ে বার্সেেলানার ফেডারেল আদালতে মামলাও হয়েছে। সেই মামলায় একাধিক বার কাের্টে হাজিরাও দিয়েছেন মেসি।

২০১৩ সালে স্প্যানিশ কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করে, ২০০৭ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত প্রায় ৪১ লাখ ইউরোর কর ফাঁকি দিয়েছেন মেসি। পরে অবশ্য অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

মেসি ছাড়াও কর ফাঁকির অভিযোগ রয়েছে তার ক্লাব সতীর্থ ব্রাজিল তারকা নেইমারের বিরুদ্ধে। যে অভিযোগে নেইমারের ব্যক্তিগত জেট বিমান, প্রমোদতরীসহ ৫০ মিলিয়ন ডলারের সম্পদ জব্দ করে ব্রাজিল কর্তৃপক্ষ।

এ পর্যন্ত নেইমারের জব্দকৃত সম্পদের পরিমাণ ৫০ মিলিয়ন ডলার। ব্রাজিলিয়ান মুদ্রায় এর পরিমাণ ১৯২ মিলিয়ন রিয়েল। তবে এই অভিযোগ থাকলেও মোসাক ফনসেকা ওই গোপন নথিতে নাম নেই নেইমারের।

ফাঁস হওয়া গোপনীয় এই নথি-পত্রগুলো থেকে দেখা যাচ্ছে, পৃথিবীর নানা দেশের মোট ৭২ জন বর্তমান ও সাবেক রাষ্ট্রপ্রধান তাদের নিজেদের দেশের সম্পদ লুণ্ঠন করছেন। ২শ দেশ ও টেরিটরি সব মিলিয়ে ২ লাখ ১৪ হাজার লোকের নাম রয়েছে। এদের ১৪০ জনের বেশি রাজনীতিবিদ।

শুধু রাজনীতিবিদই নন, ফাঁস হওয়া তালিকায় রয়েছে মুদ্রাপাচারকারী, মাদক ব্যবসায়ী, সেলিব্রেটি ও ক্রীড়া তারকাদের নামও। মেসি ছাড়াও এই তালিকায় নাম রয়েছে উইয়েফা সভাপতি ও ফরাসি তারকা মিশেল প্লাতিনি, চিলির ইভান জামরানো ও মুভি সুপারস্টার জ্যাকি চেনের নাম।