মেইন ম্যেনু

‘বিশ্বযুদ্ধের শঙ্কায়’ ন্যাটোর সামরিক মহড়া

দীর্ঘ ১৩ বছর পর অুনষ্ঠিত হচ্ছে ন্যাটোর সামরিক মহড়া। গতকাল সোমবার থেকে দক্ষিণ আটলান্টিক সাগর ও যুক্তরাষ্ট্রের নেভাদায় ন্যাটোর সামরিক মহড়ার জন্য নির্ধারিত স্থানে শুরু হয়েছে এই মহড়া। নিউইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, ‘ট্রাইডেন্ট জাংচার ২০১৫’ নামের এই মহড়ায় অংশ নিয়েছে ৩০টি সদস্য দেশের সেনারা।

ন্যাটো জানিয়েছে, মহড়ায় ৩৬ হাজার সেনা, ২০০ বিমান এবং ৬০টি যুদ্ধজাহাজ অংশ নিয়েছে। চলতি মাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত চলবে বিশেষ এই মহড়ার প্রথম পর্যায়। আর ২১ তারিখ থেকে শুরু হয়ে দ্বিতীয় পর্যায়ের মহড়া আগামী মাসের ৬ তারিখ পর্যন্ত চলবে। প্রথম পর্যায়ের মহড়ায় যোগ দিয়েছে ইউরোপীয় এবং আফ্রিকান ইউনিয়ন। আর ‘ট্রাইডেন্ট জাংচার ২০১৫-এর দ্বিতীয় পর্যায়ের মহড়ায় অংশ নেবে এশিয়াসহ বাকি দেশগুলো।

বিশাল এই সামরিক মহড়ার পরিপ্রেক্ষিতে নিউইয়র্ক টাইমস বিশ্বযুদ্ধের শঙ্কা প্রকাশ করেছে। পত্রিকাটি প্রশ্ন তুলেছে, তবে কি সাম্প্রতিক সময়ে কোনো বড়সড়ো হামলার সম্ভাবনা রয়েছে? না কি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ দোরগোড়ায়?

জবাবে ন্যাটোর শান্তিরক্ষা বাহিনীর মুখপাত্র সিমন্স জার্গেনের বক্তব্য, ‘জরুরি অবস্থায় সাড়া দেওয়ার জন্য তৈরি ন্যাটোর কুইক রেসপন্স ফোর্সের ক্ষমতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যেই এই মহড়ার আয়োজন।’

এর আগে গত মাসে জাতিসংঘের সাধারণ সভায় সংস্থাটির মহাসচিব সব সদস্য দেশকেই শান্তিরক্ষা বাহিনীতে সেনা পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছেন। জবাবে সদস্য রাষ্ট্রগুলো সেনা পাঠানোর পাশাপাশি আর্থিক সাহায্য দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেছে।