মেইন ম্যেনু

বিশ্বের সবচেয়ে অদ্ভুত ও বড় সাইকেল ষ্টোর

মোটরগাড়ি, বাইসাইকেল প্রস্তুতের জন্য বিখ্যাত হচ্ছে জার্মানি। নামিদামি সব ব্র্যান্ডের জন্য বিশ্বব্যাপী নাম আছে দেশটির। যে দেশের সাইকেলে বিশ্বের মানুষ চড়ে, সে দেশের সাইকেল শপগুলো তো একটু আলাদা হলে অবাক তো হতেই হয়। আজকে জানাচ্ছি দারুণ একটি বাইসাইকেল শপের কথা।

এমন নিদর্শন খুঁজে পাওয়া যাবে জার্মানির বার্লন থেকে ২০ কিলোমিটার দূরের অল্টল্যান্ডবার্গে। এখানে রয়েছে অদ্ভুত বৈশিষ্ট্যের চোখ ধাঁধানো এক বাইসাইকেল শপ। প্রথাগত কোনো শোরুমের মতো নয় এই বাইসাইকেল শপটি। পুরো ভবনটিই শোরুম। তবে ভেতরে নয়, বাইরে।

ভবনের বাইরের দেওয়াল জুড়ে ঝোলানো অবস্থায় সাজানো রয়েছে একশোর বেশি সাইকেল! কেউ প্রথমে এটিকে দেখে কোনো শিল্পশালা বলে ভুল করতে পারেন। কিন্তু, আদতে এটা স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত স্থানীয় একটি বাইসাইকেল শপ।

তবে নতুন নয়, এটা একটি পুরনো সাইকেল শপ, যার মালিক কানাডিয়ান পিটার হরস্টম্যান। বাহ্যিক দৃষ্টিতে অনেকটা হাস্য-রসাত্মক কাণ্ড মনে হওয়া এই উদ্ভাবনী বুদ্ধিই তাকে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠিত করেছে।

প্রথমে ৪০টি পুরনো সাইকেল কেনেন তিনি। একদিন এক বিক্রেতা এসে তাকে জিজ্ঞেস করেন, এগুলো দিয়ে তিনি কী করবেন! তখন তিনি উত্তর দিলেন, এগুলো আমি দেওয়ালে ঝুলাবো। এ কথা শুনে তার ব্যবসায়িক অংশীদার ক্রিস্টিয়ান সঙ্গে সঙ্গে আইডিয়াটি লুফে নিলেন।

তারপর বললেন, এটাই হবে, আমাদের মার্কেটিংয়ের প্রধান অস্ত্র। সঙ্গে সঙ্গে তিনি সাইকেলগুলো দেওয়ালে ঝোলানোর ব্যবস্থা করে ফেললেন। বর্তমানে সেখানে ১২০টি সাইকেল ঝুলিয়ে রাখা যায়। এই অদ্ভুত আইডিয়ায় মার্কেটিংয়ের জন্য তাদের লাভ বেড়ে যায় ৪০ শতাংশ। এমনকী যখন পুরো জার্মানির সাইকেল মার্কেটে ২২ শতাংশ বিক্রি কমে যায়, তখনও তাদের বিক্রি কমেনি শুধুমাত্র উদ্ভাবনী বিজ্ঞাপনী আইডিয়ার কারণে।