মেইন ম্যেনু

বিশ্বের সবচেয়ে সুখী শিশুর খেতাব পেল অপরিণত শিশুটি

জন্মের মাত্র পাঁচ দিনের মধ্যেই অপরিণত শিশুটি তার হাসি দিয়ে যেন বিশ্বজয় করে নিল। কারণ অনলাইনে তার হাসির ছবি তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ইন্ডিপেনডেন্ট।

জন্মের সময় ফ্রেয়া নামে কন্যা শিশুটির ওজন ছিল স্বাভাবিক শিশুদের তুলনায় অনেক কম। আর এ কারণে তাকে নিয়ে শঙ্কিত ছিলেন বাবা-মা। কারণ তার ওজন ছিল মাত্র ১.৭ কেজি। স্বাভাবিক শিশুর ওজন হবে আড়াই থেকে ৫ কেজি পর্যন্ত।

তবে ওজন কম থাকায় তাকে নিয়ে স্বজনদের উদ্বেগকে নিজের হাসি দিয়েই ভুলিয়ে দিয়েছে সে। শিশুটির জন্মের কয়েকদিনের মধ্যেই সে দারুণ এ হাসি দেওয়া শুরু করে। ক্যামেরাতে উঠে আসে তার সেই হাসিমুখ।

অনলাইনে ফ্রেয়ার হাসির ছবি ছড়িয়ে পড়ে। আর এ ছবি দেখে সবাই তাকে বিশ্বের সবচেয়ে সুখী শিশু হিসেবে অভিহিত করে।
২০১৪ সালে ফ্রেয়ার জন্ম। এরপর দুই বছর পেরিয়ে গেছে। বর্তমানে তার বাবা-মা দুই বছর বয়সী ফ্রেয়ার ছবি অনলাইনে শেয়ার করেছেন। এখনও তাকে হাসিখুশি দেখা যাচ্ছে।

ফ্রেয়ার বাবা-মা ডেভিড ও লরেন ভিনজে। ফ্রেয়ার মা জানান, জন্মের সময় তার নানা ধরনের শারীরিক জটিলতা ছিল। ফলে শিশুটির ওজন বাড়েনি। অপরিণত অবস্থায় জন্মগ্রহণ করে সে। অবশ্য জন্মের কয়েক দিনের মধ্যেই অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে ওঠে ফ্রেয়া।



« (পূর্বের সংবাদ)