মেইন ম্যেনু

বিশ্ব বাঁচতে ঐতিহাসিক জলবায়ু চুক্তি

কার্বন নিঃসরণ কমিয়ে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রেখে বিশ্বকে বাঁচাতে ঐতিহাসিক জলবায়ু চুক্তি হয়েছে। শনিবার ফ্রান্সের প্যারিসে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে এই চুক্তি হয়।

এই চুক্তির ফলে ২০২০ সালের পরে শিল্পোন্নত দেশগুলো জীবাশ্ম জ্বালানির পরিবর্তে বিকল্প জ্বলানিভিত্তিক অর্থনীতি দাঁড় করানোর উদ্যোগ নেবে এবং তা বাস্তবায়ন করা শুরু করবে। এ ছাড়া ২০২০ সালের পর উন্নয়নশীল দেশগুলোকে উন্নত দেশগুলো প্রতিবছর ১০ হাজার ডলার দেবে।

প্যারিসে ২১তম কনফারেন্স অব পার্টিজ বা কপ২১ শীর্ষক বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলনে বিশ্বের প্রায় ২০০টি দেশ অংশ নেয়। শনিবার সব দেশের প্রতিনিধিরা কার্বন নিঃসরণ কমিয়ে তাপমাত্রা বৃদ্ধি ২ ডিগ্রির নিচের রাখার বিষয়ে সম্মতি দেন। এর আগে শনিবারই ফ্যান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লরা ফ্যাবিয়াস চুক্তির খসড়া সম্মেলনে উপস্থাপন করেন। এই প্রস্তাবে সবাই সাই দেয় এবং পরে চূড়ান্ত চুক্তিতে পৌঁছায় সবাই।

যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ভারত, জার্মানিসহ বিশ্বের সব শিল্পোন্নত দেশ চুক্তিতে সম্মত হওয়ার পর প্যারিসে সম্মেলনে কক্ষে প্রবেশ করে চুক্তির বিষয়ে সবার সম্মতি চান। এই চুক্তিকে তিনি ‘প্যারিস এগ্রিমেন্ট’ বা ‘প্যারিস চুক্তি’ অভিহিত করে সব প্রতিনিধিদের উদ্দেশে বলেন, কক্ষের মধ্যে তাকিয়ে আমি দেখছি, প্রতিক্রিয়া ইতিবাচক। কারো কোনো আপত্তি দেখছি না আমি। প্যারিস চুক্তি গৃহীত হলো।’

ফ্যাবিসয়াসের ঘোষণার পরই প্রতিনিধিরা দাঁড়িয়ে উচ্ছাস প্রকাশ করেন এবং করতালি দিয়ে অভিবাদন জানান। আর এর মধ্য দিয়েই বহুল প্রতীক্ষিত বিশ্ব জলবায়ু চুক্তি সম্পন্ন হয়।

প্রতি পাঁচ বছর অন্তর গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমণ বিষয়ে দেশগুলো ঠিকঠাক কাজ করছে কি না, তা পর্যালোচনা করা হবে।

কপ২১ সম্মেলনে গ্রিন হাউস গ্যাস বা বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত গরিব দেশগুলো যে ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়ে আসছিল, তা তারা ঠিকমতো পাবে কি না- এ নিয়ে সংশয় থেকেই গেল।

তথ্যসূত্র : বিবিসি ও আলজাজিরা অনলাইন।