মেইন ম্যেনু

বিশ্ব সিনেমা নিয়ে আমেরিকার ঠাট্টা ও একটি অস্কার অ্যাওয়ার্ড

আর মাত্র কয়েক ঘন্টা। তারপরই শুরু হচ্ছে বিশ্ব সিনেমায় বছরের সবচেয়ে প্রতীক্ষিত মুহূর্তটির। হ্যাঁ, বলছিলাম গেল বছরের সিনেমা নিয়ে শ্রেষ্ঠত্ব নির্বাচনের বিশাল প্লাটফর্ম ‘অস্কার অ্যাওয়ার্ড’-এর কথা। বিকাল সাড়ে পাঁচটায় শুরু হতে যাওয়া এই অনুষ্ঠানে দেয়া হবে ২০১৫ সালে হলিউড মাতানো সিনেমাগুলোকে শ্রেষ্ঠত্বের মর্যাদা।

সেরা নির্মাতা, অভিনেতা, অভিনেত্রীসহ সিনেমার নির্মাণ ও বিভিন্ন কলাকৌশলের উপর দেয়া হয় জৌলুসময় আর মর্যাপূর্ণ এই সম্মাননা ও অর্থমূল্য। বিশ্বে এই অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান নিয়ে যে মাতামাতি, তা সিনেমা সম্পর্কিত আর কোনো ফেস্টিভাল কিংবা অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠান নিয়ে হয় না। বিশ্ব মিডিয়া মাস খানেক আগে থেকেই অস্কার নিয়ে সরব হয়ে উঠে। কে পেতে যাচ্ছেন অস্কার সেরার পুরস্কার, আর কে পাচ্ছেন না এ নিয়ে চলে টানা মাস দু‘য়েক হরদম তর্ক বিতর্ক।

‘অস্কার অ্যাওয়ার্ড’ জারি রাখে টিভি টক শো থেকে শুরু করে বিশ্ব বিনোদনের শীর্ষস্থানীয় পাতাগুলো। অন্তত মাসব্যাপী সকলেই মেতে থাকেন এই অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানটি নিয়ে। অথচ এটা শুধুমাত্র আমেরিকান সিনেমার বার্ষিক একটা পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ছাড়া কিছুই নয়! যদিও বিশ্ব সিনেমাওয়ালাদের ডেকে এনে রীতিমত ঠাট্টা করে ছেড়ে দেন তারা! এতেও অনেকেই খুশি। নির্মাতারা আনন্দ কিংবা গর্ববোধও করে থাকেন এই ভেবে যে, তার সিনেমাটা অস্কারে গেছে!

যদিও ওই নির্মাতাটির ভাবা উচিত, হলিউডের সিনেমা ছাড়া বিশ্ব সিনেমাকে মোটেও গুরুত্ব দেয় না ‘অস্কার’ কর্তৃপক্ষ। সিনেমা নির্মাণ করে বিশ্বের এমন প্রায় সব দেশ থেকেই অন্তত একটি করে সিনেমা আহ্বান করেন তারা। তাও শ্লেচ্ছ করে নাম রাখেন ‘ফরেন ক্যাটাগরি’!

এটাও হাস্যকর। দুইশো আড়াইশো দেশ থেকে সিনেমা নিয়ে তারা পাঁচটা সিনেমাকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেন, আর বাকীগুলো ছুড়ে ফেলেন। মূল প্রতিযোগিতায় যে একটা সিনেমাকে ‘বিদেশি ভাষায় সেরা সিনেমা’ মূল্যায়ন করা হয়, আর তা নিয়ে বিশ্ব মিডিয়ার মাস দুয়েকব্যাপী আহ্লাদ দেখার মত! বিশ্ব সিনেমা নিয়ে এটা আমেরিকার ঠাট্টা কিনা, তা কি কেউ ভেবে দেখবেন…!

তাহলে অস্কার নিয়ে মানুষের এত আগ্রহ কেন? এটা কি আমেরিকার অনুষ্ঠান বলে? তারা পৃথিবীর অধিশ্বর বলে?