মেইন ম্যেনু

বিসিবি একাদশের প্রতিরোধহীন হার

আব্দুর রাজ্জাকের করা ১২তম ওভারের শেষ বল। হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান ডেভিড মিলার উড়িয়ে মারলেন। বলটি গিয়ে সাইড স্ক্রিনের উপর আছড়ে পড়ল। গ্যালারি থেকে ভেসে এলো হর্সধ্বনি। আম্পায়ার আনিসুর রহমান দুই হাত উঁচিয়ে ছক্কার সংকেত দিলেন। গ্লাভস খুলে বিসিবি একাদশের খেলোয়াড়দের সঙ্গে হাত মেলাতে শুরু করলেন ডেভিড মিলার ও জেপি ডুমিনি। দর্শকরাও গ্যালারি ছাড়তে শুরু করলেন। বিসিবি একাদশের শ্রীহীন ব্যাটিংয়ের পর দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং কিছুটা হলেও দৃষ্টি জুড়িয়েছে তাদের।

অন্যদিকে প্রস্তুতি ম্যাচে বল ও ব্যাট হাতে ভালোই প্রস্তুতি সেরে নিল প্রোটিয়ারা। বিসিবি একাদশকে ৯৯ রানে অলআউট করার পর একপ্রকার বিনা উইকেটেই সেই রান তুলে নেয় তারা।

শুক্রবার ১০০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে এবি ডি ভিলিয়ার্স (২৫) ও কুইনটন ডি কক (৩৫) মিলে ৬৪ রানে জুটি গড়েন। এরপর দুজনেই বিশ্রামে চলে যান (রিটায়ার্ড আউট)। মাঠে নামেন জেপি ডুমিনি ও ডেভিড মিলার। তারা দুজন অবিচ্ছিন্ন থেকে ৮ উইকেটের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন। এ যাত্রায় ডুমিনি ১৭ ও মিলার ২০ রান করেন। বল হাতে বিসিবি একাদশের বোলাররা খুব একটা সমস্যায় ফেলতে পারেননি প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানদের।

index1

শট খেলছেন এবি ডি ভিলিয়ার্স

এর আগে কাঠফাটা রোদ আর রমজান মাস উপেক্ষা করে ১৫ হাজার দর্শক হাজির হন মাঠে। মাঠে প্রবেশ করতে গিয়ে হুড়োহুড়িতে আহত হন বেশ কয়েকজন। কিন্তু টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দর্শকদের হতাশ করে বিসিবি একাদশ। তাদের শ্রীহীন ব্যাটিং মনে করিয়ে দেয় বাংলাদেশের ক্রিকেটের শুরুর দিকের কথা। যখন একের পর এক ব্যাটসম্যানরা আসা-যাওয়া মিছিলে সামিল হতেন। প্রস্তুতি ম্যাচে বিসিবি একাদশের ব্যাটিং রীতিমতো অপ্রস্তুত করে দিয়েছে দর্শকদের।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ১৮ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ৯৯ রান সংগ্রহ করে বিসিবি একাদশ। প্রস্তুতি ম্যাচ। তাই দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশের ৯ জন খেলোয়াড়ই হাত ঘুরিয়েছেন বল নিয়ে। শুধু অধিনায়ক ফাপ ডু প্লেসিস ও উইকেটরক্ষক কুইটন ডি কক বল করেননি। ৯ জন বোলারের ৫ জনই উইকেট পেয়েছেন। তার মধ্যে ডেভিড ওয়াইস ৩টি, অ্যারোন ফাঙ্গিসো ২টি, কাইল অ্যাবোট ২টি, কাগিসো রাবাদা ১টি, জেপি ডুমিনি ১টি ও এডি লেই ১ উইকেট নেন।

index

উইকেট নেওয়ার পর এডি লেইয়ের উদযাপন

ব্যাট হাতে বিসিবি একাদশের অধিনায়ক ইমরুল কায়েস সর্বোচ্চ ২৯ রান করেন। এ ছাড়া শুভাগত হোম ১৮ ও সোহাগ গাজী ১৩ রান করেন। বাকিদের কেউই দুই অঙ্কের কোটা স্পর্শ করতে পারেননি।

সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে রোববার মিরপুরে বাংলাদেশ দলের মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকা। এরপর ৭ জুলাই দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে তারা।