মেইন ম্যেনু

বিয়ের ১২ বছর পর এক সঙ্গে ৫ সন্তান প্রসব

বিয়ের পর ১২টি বছর কেটে গেলেও সন্তানের মুখ দেখা হয়নি। এ নিয়ে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের কাছ থেকে শুনতে হয়েছে নানা কথা। অবশেষে একসঙ্গে পাঁচ সন্তান জন্ম দিয়ে সেই গঞ্জনা ও বন্ধ্যাত্বের অবসান হলো গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার আরজিনা বেগমের।

মঙ্গলবার রাত ১১টায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে একসঙ্গে পাঁচ সন্তান জন্ম দেন সাদুল্যাপুর উপজেলার কিশামত শেরপুর গ্রামের আরজিনা বেগম। খবর শোনার পরপরই যে শ্বশুরবাড়ির লোকজন আরজিনাকে দেখতেই পারত না, তারাই এখন ভাসছে আনন্দের বন্যায়।

পরিবারের সদস্যরা জানান, গতকাল বিকালে প্রসব বেদনা শুরু হলে আরজিনাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর রাত ১০টার পর গাইনি চিকিৎসক সিরাজুম মুনিরা ডেইজির নেতৃত্বে একদল চিকিৎসক সফল অস্ত্রোপচার করেন এবং একে একে জন্ম লাভ করে পাঁচটি ফুটফুটে শিশুসন্তান। এর মধ্যে তিনটি ছেলে ও দুটি মেয়ে।

খবর পেয়ে আরজিনার শ্বশুরবাড়ির লোকজন আনন্দে মেতে ওঠে। ১২ বছর পর সন্তানের বাবা হবেন এমন খুশিতে ঢাকার একটি পোশাক কারখানায় কর্মরত আরজিনার স্বামী শেরেগুল ইসলামও ছুটে আসেন স্ত্রীর পাশে।

সিরাজুম মুনিরা ডেইজি জানান, সব বাচ্চাই সুস্থ রয়েছে। তাদের ওজনও বেশ ভালো। তবে একটি সন্তান কিছুটা দুর্বল হলেও তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে আশা করছেন তিনি।