মেইন ম্যেনু

বিড়ালের মৃত্যুতে মামলা, তদন্তে নেমেছে পুলিশ

ফুটপাথে পড়ে থেকে পথচারীর মৃত্যুর সাক্ষী হয়েছে বহু শহর৷ আবার হাসপাতাল রোগীকে না রাখায় বা ফিরিয়ে দেওয়ায় রোগীর মৃত্যুও ঘটে অহরহ৷ তবে ভারতে এবার যা ঘটল তা সত্যিই অভিনব। এই শহরেই একটি বেওয়ারিশ বিড়ালের অপঘাতে মৃত্যুর অভিযোগে কলকাতার একটি থানায় হাজির হলেন পাটুলির এক ব্যক্তি৷ সৈকত সরকার নামে ওই ব্যক্তির অভিযোগ, শুক্রবার রাত দশটা নাগাদ রাস্তার একটি বিড়ালকে হত্যা করা হয়েছে!

অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিড়াল হত্যার অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি৷ অভিযোগ পাওয়ার পরেই মৃত বিড়ালটিকে উদ্ধার করে পুলিশ৷ পরে প্রিভেনশন টু ক্রুয়েলটি টু অ্যানিম্যাল অ্যাক্ট, ১৯৬০ অনুযায়ী বিড়াল হত্যার তদন্ত শুরু করে দিয়েছে৷ মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে দেহটি ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে৷

তবে বিড়ালকে ‘সফট টার্গেট করা’ একেবারে ব্যতিক্রমী ঘটনা নয়৷ কয়েক মাস আগে কালীঘাটে এক ব্যক্তির সাতটি বিড়াল হত্যা করেছিলেন তাঁরই এক প্রতিবেশী৷

তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, প্রতিবেশীর সঙ্গে বিড়ালের মালিকের সম্পর্ক ভালো ছিল না৷ তাই আক্রোশের বশেই বিড়ালগুলিকে হত্যা করা হয়৷ বছর খানেক আগে ভবানীপুরেও প্রতিবেশীর রোষের বলি হয়েছিল একটি বিড়াল৷ জমে থাকা রাগ মেটাতে প্রতিবেশীর একটি বিড়ালকে মেরে পুড়িয়েও দিয়েছিলেন আর এক প্রতিবেশী৷

পাটুলির ঘটনাটি অবশ্য আগের দু’টি ঘটনার থেকে একেবারে আলাদা৷ এখানে বিড়ালটির তথাকথিত কোনও মালিক নেই৷ তাই এমন অভিযোগকে বেশ বিরল বলেই মনে করা হচ্ছে৷
সূত্র: এই সময়