মেইন ম্যেনু

বিয়ের কনের পায়ের যত্নে জেনে নিন

আর কিছুদিন পরেই বাজবে আপনার বিয়ের সানাই। আর তাই পার্লার কিংবা বাড়িতে ত্বক বা চুলের চর্চা চলছে নিয়মিত। কিন্তু পায়ের দিকে খেয়াল রেখেছেন তো?

একে তো শীত শীত আবহাওয়া, তারপর আবার দৌড়ঝাঁপ- পায়ের অবস্থা বেহাল হওয়া স্বাভাবিক। কিন্তু মনে রাখবেন, পা যদি সুন্দর না হয় তবে কিন্তু বিয়ের সাজের পারফেক্ট সাজে খুঁত থেকে যাবে। জেনে নিন বিয়ের কনের পায়ের সৌন্দর্য্যে এক মাসের ফুট কেয়ার রুটিন। তবে তার আগে জরুরি কথা-

পায়ের ত্বক যদি ট্যান হয়ে থাকে তাহলে এক টুকরো টমেটো দিয়ে পায়ে ঘষুন। কিছু ক্ষণ রেখে জল দিয়ে ধুয়ে নিন। অথবা এক চা চামচ বেসন, এক চা চামচ দই, হলুদ গুঁড়ো, কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ও গোলাপ জলে গুলে প্যাক পায়ে লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। টানা এক মাস এটা করলে ট্যান চলে যাবে।

যদি গোড়ালি শক্ত হয়ে কালো হয়ে যায় তাহলে অর্ধেক লেবুর টুকরোয় কয়েক দানা চিনি নিয়ে গোড়ালিতে ঘষতে থাকুন। ১০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এটাও টানা এক মাস করলে গোড়ালির চামড়া নরম হবে।

এ বার শুরু করুন প্রাত্যহিক রুটিন।

প্রথমে নখ কেটে কোন থেকে নোংরা বের করে পরিষ্কার করে নিন।

হালকা গরম পানিতে ১০ মিনিট পা ডুবিয়ে রাখুন। এতে রোমকূপ বড় হয়ে ময়লা সহজে বেরিয়ে আসবে। মরা চামড়াও নরম হবে। জল থেকে পা তুলে নিয়ে হালকা স্ক্রাব দিয়ে ঘষে পরিষ্কার করে নিন।

নখের ওপর ক্রিম লাগিয়ে ফাইলার দিয়ে কিউটিকল তুলে দিন।

যদি পায়ে ব্যথা থাকে তাহলে এর পর গরম জলে অল্প লবন ও এসেনশিয়াল অয়েল দিয়ে পা কিছু ক্ষণ ডুবিয়ে রখুন। এতে ব্যথা কমবে। জল থেকে পা তুলে শুকনো করে মুছে নিন। বিশেষ করে আঙুলের খাঁজ ভাল করে মুছে নিন। এখানে জল জমে থাকলে ত্বকের অসুখ হতে পারে।

এ বার ম্যাসেজ করার পালা। ভাল ফুট ক্রিম পায়ে লাগিয়ে নিন। বুড়ো আঙুলের হালকা চাপ দিতে দিতে পা আস্তে আস্তে মাসাজ করতে থাকুন। পায়ের তলার নার্ভে অ্যাকুপাংচার পয়েন্টে চাপ দিলে আরাম পাবেন। রিল্যাক্স লাগবে।

যদি গোড়ালির কাছে শক্ত হয়ে থাকে তবে হাতের হালকা চাপে ক্লকওয়াইজ মোশনে ম্যাসেজ করতে থাকুন।

নখের উপর থেকে অতিরিক্ত ক্রিম তুলো দিয়ে মুছে নিন।

বিয়ের আগে প্রতি দিন রাতে শোওয়ার আগে মেনে চলুন এই রুটিন। হয়ে উঠুন অনন্য বধু।