মেইন ম্যেনু

বিয়ের খবর দিলেন তিন্নি

‘বিয়েটা আমি ২০১৪ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি করেছি। এটা ছিল পুরোপুরি পরিবারের অমতে। আমার পরিবারও বিয়ের ব্যাপারটি মানতে রাজি ছিল না। তাই এ নিয়ে খুব একটা কথাও বলতে চাইনি।’ আজ ২৯ অক্টোবর সন্ধ্যায় এভাবেই প্রথম আলোকে তাঁর বিয়ের খবর জানালেন তিন্নি।

শুরু থেকে নানা কারণেই আলোচিত মডেল ও অভিনেত্রী তিন্নি। আর এবার তাঁকে নিয়ে সে আলোচনা আরও জমাট বেঁধেছে। কারণ, তিন্নি আবার বিয়ে করেছেন। পাত্র আদনান হুদা সাদ।

আজ ফেসবুকে বিয়ের বিষয়টি নিয়ে একটা পোস্টও দিয়েছেন তিন্নি। সেখানে তিনি লেখেন, ‘আই গট ম্যারেড। অ্যান্ড হ্যাপিলি ম্যারেড টু মাই লাভ মিস্টার আদনান হুদা সাদ।’

নিজের দ্বিতীয় বিয়ের প্রসঙ্গে তিন্নি বলেন, ‘এখন অনেকটাই স্বাভাবিক হয়ে গেছে বিয়ের বিষয়টা। তাই ফেসবুকের মাধ্যমে ব্যাপারটি আর গোপন রাখতে চাইলাম না।’

তিন্নির এটি দ্বিতীয় বিয়ে হলেও আদনানের প্রথম। আজ সন্ধ্যায় তিন্নি এবং তাঁর স্বামী আদনান হুদা সাদ দুজনেই বিয়ের প্রসঙ্গটি নিয়ে কথা বলেছেন।তিন্নিতিন্নি

দুজনের পরিচয়টা কীভাবে হয়েছিল জানতে চাইলে তিন্নি বলেন, ‘বন্ধুমহল থেকেই সাদের সঙ্গে আমার পরিচয়। ২০১৩ সালে প্রথম আমি তাঁর সেন্ট্রাল রোডের বাসায় যাই। এরপর আমাদের নিয়মিত দেখা হতো। একটা সময় দুজনের মধ্যে দারুণ একটা বোঝাপড়াও তৈরি হয়।’

তিনি বলেন, ‘আমি অবশ্য তখন মানসিকভাবে খুব খারাপ অবস্থায় ছিলাম। সাদ আমাকে খুব সাহস দিত। একটা সময় সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি বিয়ে করার। দুজন মিলে ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে কাজটা সেরেও নিই। আমি মানসিকভাবে এখন অনেক খুশি।’

এদিকে তিন্নিকে স্ত্রী হিসেবে পেয়ে খুশি সাদও। বললেন, ‘তিন্নিকে ভালো লাগত। একটা সময় ভালোবাসতে শুরু করি। এখন সে আমার জীবনসঙ্গী। খুবই ভালো লাগছে। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

উল্লেখ্য, তিন্নির সঙ্গে এর আগে অভিনেতা আদনান ফারুক হিল্লোলের বিয়ে হয়েছিল। একটা সময়ে দুজনের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এর পর থেকে তিন্নি তাঁর মা ও একমাত্র মেয়ে ওয়ারিসাকে নিয়েই ছিলেন।

এদিকে, তিন্নির সঙ্গে ছাড়াছাড়ির পর হিল্লোল বিয়ে করেন অভিনেত্রী নওশীনকে। দীর্ঘদিন অভিনয় থেকে দূরে থাকা তিন্নি এ বছরের সেপ্টেম্বর মাসে তাঁর মায়ের লেখা একটি নাটকের মাধ্যমে কাজে ফেরেন।প্রথমআলো