মেইন ম্যেনু

বি গ্রেড চলচ্চিত্রে বলিউডের বিখ্যাত তারকারা

তারকারা সবসময়ই ভক্ত আর সাধারণ মানুষের মনের উঁচু একটা স্থানে অবস্থান করে। তাদের জীবন, তাদের কাজ, তাদের সবকিছু মানুষকে আকর্ষণ করে অনেক বেশি। আর তাই নিজের পছন্দের তারকাকে নিয়ে মোটেও বাজে কিছু ভাবতে চাননা কেউ। কিন্তু কেমন লাগবে আপনার যখন শুনবেন আপনার খুব শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার এই তারকাই কাজ করেছেন বি গ্রডের কোনো চলচ্চিত্রে? নিশ্চয় প্রথমবারে মনে হবে কানেরই ভুল ছিল? কিন্তু বাস্তবে সত্যিই প্রচন্ড নিন্মমানের চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন বলিউডের অনেক তারকাই।

এক্ষেত্রে দায়ী ছিল কখনও তাদের ভুল সিদ্ধান্ত, কখনও বাছাইয়ের অভাব, আবার কখনও পড়তি জনপ্রিয়তা। তবে কারণ যেটাই হোক না কেন, নিজেদের এই বি গ্রেডের চলচ্চিত্রের দুর্নাম কখনোই পিছু ছাড়েনি তাদের। এমনকি পরবর্তী জীবনে প্রচুর সাফল্য পাওয়ার পরেও। আসুন দেখে নিই এমনই কিছু বলিউডের বিখ্যাত তারকার করা বি গ্রেড চলচ্চিত্রেগুলোর নাম।

অমিতাভ বচ্চন : নামটা শুনে চোখ কপালে উঠল বুঝি? কিন্তু সত্যিই ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ধাপের শুরুর দিকটায় যখন প্রায় ধ্বসে যাচ্ছিল অমিতাভের পায়ের নীচের মাটি, তখনই ডুবন্ত মানুষের মতো যা পাচ্ছিলেন তাই ধরে ভেসে থাকতে চাচ্ছিলেন বলিউডের বিগ বি খ্যাত এ তারকা। আর সে তালিকা থেকে বাদ পড়েনি বি গ্রেডের চলচ্চিত্রের নামও। ২০০৩ সালে বুম নামক একটি বি গ্রেড চলচ্চিত্রে বেশ সাহসী আর নীচু একটি চরিত্রে অভিনয় করেন অমিতাভ। শুধু তিনিই নন, এতে অভিনয় করেন হালের আরেক তারকা ক্যাটরিনা কাইফও। বক্স অফিসে খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রচন্ড বাজে ব্যবসা করে সিনেমাটি।

রেখা : পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা খুব একটা ভালো ছিলনা বলিউডের বিখ্যাত আরেক অভিনেত্রী রেখার। আর তাই খুব অল্প বয়সেই চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন তিনি। প্রথমদিকে যেহেতু ভালো কোনো কাজ পাননি রেখা তাই পেটের তাগিদেই তাকে বেছে নিতে হয় বি গ্রেডের নানারকম চলচ্চিত্রে। এ সময় কামসূত্রসহ আরো বেশকিছু নীচুমানের চলচ্চিত্রে দেখা যায় তাকে।

অক্ষয় কুমার : হলিউডের জেমস বন্ডকে নকল করে সেবার ভারতে তৈরি করা হয় চলচ্চিত্র মি: বন্ড। আর এ চলচ্চিত্রেই বন্ড চরিত্রে অভিনয় করেন অক্ষয়। খুব স্বাভাবিকভাবেই বন্ডের চরিত্রের বাজে দিক আর হলিউডের সমতুল্য হওয়া থেকে অনেক অনেক দূরে থাকা এই সিনেমাটি যেমন বাজে আয় করে তেমনি বি গ্রেডের তালিকায়ও সংযোজন করে আরেকটি তারকার নাম।

মনীষা কৈরালা : নেপাল থেকে ভারতীয় চলচ্চিত্রে প্রচুর নাম কামানো অভিনেত্রীদের তালিকায় থাকা প্রথম নামটি হচ্ছে মনীষা কৈরালা। আর ২০০২ সালে এই বিখ্যাত অভিনেত্রীই অভিনয় করেন এক ছোটি সি লাভ স্টোরি নামের বি গ্রেডের এক চলচ্চিত্রে। সিনেমাটির গল্প গড়ে ওঠে এক তরুণ আর তার চাইতে বয়সে বড় এক নারীর ভেতরে গড়ে তৈরি হওয়া ভালোবাসাকে কেন্দ্র করে। নগ্নতার সীমানা পেরিয়ে যায় এ চলচ্চিত্রটি। তবে সমালোচনার ঝড় বয়ে গেলে নিজে থেকেই সিনেমাটির বেশকিছু আপত্তিকর দৃশ্য কেটে দেন মনীষা।

মমতা কুলকার্নি : বর্তমান সময়ে চলচ্চিত্রে তেমন একটা দেখতে পাওয়া না গেলেও একটা সময় বেশ ভালো অবস্থানে ছিলেন বলিউডের এই অভিনেত্রী। করণ অর্জুন আর ক্রান্তিভীরের মতো বিখ্যাত চলচ্চিত্রেগুলোতে অভিনয় করেন তিনি। তবে নিজের অভিনয়জীবনের শেষদিকটায় এসে বি গ্রেডের বেশকিছু সিনেমাতে হাত দেন মমতা। হয়তো টিকে থাকার প্রাণপণ চেষ্টা থেকেই ২০০২ সালে ডিভাইন টেম্পল খাজুরাহোসহ বেশকিছু চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন এই অভিনেত্রী।

শক্তি কাপুর : হালের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রদ্ধা কাপুরের বাবা এবং এককালের বিখ্যাত আর শক্তিশালী অভিনেতা শক্তি কাপুর সবাইকে সত্যিই চমকে দেন যখন বি গ্রেড সিনেমা মেরে লাইফ ম্যায় উসকি ওয়াইফে অভিনয় করেন তিনি। তবে কেবল এই একটিই নয়, একের পর এক বেশকিছু বি গ্রেডের চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন তিনি আর শেষ অব্দি আবার ফিরে আসেন মূল ধারার চলচ্চিত্রেও।

রাজেশ খান্না : একসময়ের বিখ্যাত অভিনেতা রাজেশ খান্না অনেকদিন ধরেই চলচ্চিত্রে অনুপস্থিত ছিলেন। ফলে যখন শোনা গেল নতুন কোনো চলচ্চিত্র নিয়ে ফের বলিউডে ফিরতে যাচ্ছেন তিনি বেশ নড়েচড়ে বসেছিল তার ভক্ত আর দর্শকেরা। কিন্তু কেবল ফিরে এসেই সবাইকে অবাক করে দেননি এই তারকা, সেইসঙ্গে বি গ্রেড চলচ্চিত্র ওয়াফা- এ ডেডলি লাভ স্টোরিতে মাধ্যমে বাস্তবিকভাবেই সবার চোখ কপালে তুলে দিয়েছিলেন। ফলে নিজের ফিরে আসার চলচ্চিত্রেই আবার রাজেশ খান্নাকে ফেরত যাওয়ার টিকিট হাতে ধরিয়ে দেয় সেবার।

মিঠুন চক্রবর্তী : এত এত নামী তারকাই যখন রয়েছেন এ তালিকায় তখন কেন বাদ পড়ে থাকবেন বলিউডের আরেক বিখ্যাত অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী? অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বি গ্রেড চলচ্চিত্র ক্লাসিক ড্যান্স অফ লাভে অভিনয় করেন এই অভিনেতা। এতে এক ধর্মীয় শিক্ষকের চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। যার ধ্যাণ- জ্ঞান জুড়ে থাকে এক নারী নাচিয়ে।

এশা কোপিকার : শাহরুখ খানের সঙ্গে ডন সিনেমাতে অভিনয় করা এশা কোপিকারের কথা মনে আছে তো? রেখা যেমন নিজের জীবনের শুরুটা বি গ্রেড চলচ্চিত্রের মাধ্যমে করেছিলেন, অনেকেই সেটা করেছেন হয়তো। কিন্তু এশা কোপিকার কোনোরকম কারণ ছাড়াই অভিনয় করেন হাসিনা নামের এই বি গ্রেড চলচ্চিত্রে। ফলে খুব দ্রুতই নিজের অভিনয়জীবনে ভরাডুবি নিয়ে আসেন এই অভিনেত্রী। পরবর্তীতে আর খুব একটা ভালো কাজ করতে দেখা যায়নি তাকে।

নেহা ধুপিয়া : বলিউড জগতে নেহা ধুপিয়া বেশ পরিচিত একটি নাম। বিশেষ করে অ্যাকশন রিপ্লে চলচ্চিত্রে তার অভিনয় অনেকেরই মনে থাকবে। তবে এটাই নয়, অজয় দেবগনের সঙ্গে কেয়ামত: সিটি আন্ডার থ্রেট সিনেমাটির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে জগতে প্রবেশ করেন নেহা। এরপর চেষ্টা করেন এ জগতের মূল ধারার চলচ্চিত্রের প্রধান নায়িকা বা কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয়ের। কিন্তু খুব দূঃখজনকভাবে আরেক জনপ্রিয় অভিনেতা সোনু সুদের সঙ্গে বি গ্রেড চলচ্চিত্রে শীসাতে অভিনয় করেন নেহা। যদিও বর্তমানে নেহাও বেশ প্রতিষ্ঠিত, আর সোনু সুদও তামিল ও হিন্দি চলচ্চিত্রে যথেষ্ট সফল। কিন্তু অভিনয় জীবনে পেছনে ফেলে যাওয়া এই একটি চলচ্চিত্রের মাশুল তাদেরকে দিতে হয়েছে সবসময়েই।