মেইন ম্যেনু

বৃক্ষমানবের ডানহাতের পাঁচ আঙুলেই অপারেশন সম্পন্ন

বৃক্ষমানব আবুল হোসেন বাজানদারের অস্ত্রোপচার শেষ হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় শুরু হয়ে শেষ হয় দুপুর ১২টায়। আড়াই ঘণ্টার অস্ত্রোপচার শেষে তাকে কেবিনে ফিরিয়ে নেয়া হয়।

বিরল এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর বাজানের দেহে এটাই প্রথম অস্ত্রোপচার। প্রথম দফা তার বুড়ো আঙুল ও তর্জনীতে অস্ত্রোপচার করা কথা থাকলেও শারীরিক অবস্থা ভালো থাকায় চিকিৎসকরা ডান হাতের পাঁচ আঙুলেই অস্ত্রোপচার করেন।

এ তথ্য জানিয়েছেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের প্রধান আবুল কালাম। তার নেতৃত্বেই চিকিৎসকদের একটি দল অস্ত্রোপচার করে।

আবুলের হাতের আঁচিলের কিছু নমুনা পরীক্ষার জন্য ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়েছে বলে জানান এ চিকিৎসক। আবুল বাজনদারের চিকিৎসার তত্ত্বাবধানে আছেন নয় সদস্যের একটি মেডিকেল টিম।

গত ৩০ জানুয়ারি আবুল হোসেন বাজানদার চিকিৎসা নিতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। জটিল এ রোগ পরীক্ষা-নিরীক্ষায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করে। নানা পর্যবেক্ষণের পর অস্ত্রোপচারের এ দিন ঠিক করে মেডিকেল টিম।

বাংলামেইলে প্রথম বৃক্ষমানব আবুল হোসেন বাজানদারের সংবাদ প্রকাশিত হয়। পরে তা স্থানীয় ও বিশ্ব মিডিয়ায় স্থান পায়। বৃক্ষমানবের সহায়তায় এগিয়ে আসেন বিত্তবানরা। তাদের সহায়তায় দেশে ও বিদেশে চিকিৎসাও করানো হয় এ রোগের। কিন্তু কাঙ্খিত কোনো ফল আসেনি।

সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদন দেখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন আবুল হোসেন বাজানদারকে খুলনার পাইকগাছার সরল গ্রাম থেকে ঢাকায় আনার ব্যবস্থা করেন এবং মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান।

বিরল এ রোগ আবুল বাজানদারের শরীরে বাসা বাধতে শুরু ২০০৫ সাল থেকে। বৃষ্টির বদ্ধ পানিতে ভ্যান চালাতে গিয়ে হাতে ও পায়ে আঁচিলের মত গোটা দেখা দেয়। পরে এ আঁচিলগুলো বড় হতে শুরু করে। একপর্যায়ে এ আঁচিল ভয়ঙ্কর আকার নেয়। ক’বছরের মধ্যে বাজানের দুই হাতের তালু, আঙ্গুল ও দুই পায়ের পাতায়, আঙ্গুলে গাছের শ্বাসমূলের মতো গজাতে থাকে।
পরবর্তীতে ৫ বছরে হাত ও পায়ের তালু, আঙ্গুলে শ্বাসমূল ভয়ঙ্কর রুপ নেয়। প্রচন্ড ব্যথায় কষ্ট বাড়তে থাকে আবুল বাজানদারের।

বিরল এই রোগে আক্রান্তের হাত ও পায়ে গাছের শিকড়ের মতো গজায়। এ কারণে আক্রান্ত রোগীকে ট্রি ম্যান বা বৃক্ষমানব বলা হয়। আবুল হোসেন বাজনদারসহ পৃথিবীতে এ পর্যন্ত এ ধরনের চারজন রোগীকে শনাক্ত করা গেছে। গণমাধ্যমে আসা ইন্দোনেশিয়ার বৃক্ষমানব মারা গেছেন গত বছরের ৩০ জানুয়ারি।