মেইন ম্যেনু

বেঁচে থাকলে বঙ্গবন্ধু এক নম্বর ‘বিশ্বনেতা’ হতেন

জনপ্রশাসন মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, “বঙ্গবন্ধু শুধু নেতা ছিলেন না, তিনি ছিলেন কৌশলী রণযোদ্ধা। তাঁর কোনো সামরিক প্রশিক্ষণ ছিল কি না, জানি না। তবে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধের যে কৌশল জাতির সামনে উপস্থিত করেছিলেন, তা বিস্ময়কর। পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া। আমরা ছোট দেশ, কিন্তু আমাদের নেতা ছোট ছিলেন না। আর কিছু দিন বেঁচে থাকলে বঙ্গবন্ধু এক নম্বর ‘বিশ্বনেতা’ হতেন।”

ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় সোমবার বিকেলে তিনি এসব কথা বলেন।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর মাত্র সাড়ে ১৭ মিনিটের ভাষণ আজ বিশ্ব মানতার অমূল্য সম্পদ। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ছিল কৌশলী। বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোলো, তোমাদের যার যা কিছু আছে, তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো।’

তিনি বলেন, ৭ তারিখ থেকে ২৬ তারিখ পর্যন্ত সময় না পেলে আমরা যুদ্ধে অবতীর্ন হতে পারতাম না। এই সময়ের মধ্যে আমরা প্রশিক্ষণ নিলাম। ইপিআরের লোকজন আমাদের সঙ্গে যোগ দিল। গ্রাম থেকে যুবকরা এসে আমাদের সঙ্গে যোগ দিল। ২৬ মার্চের মধ্যেই আমরা প্রস্তুত হয়ে গেলাম।

জনপ্রশাসন মন্ত্রী আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু নেতা ছিলেন না। আমি জানি না উনার কোন সামরিক প্রশিক্ষণ ছিল কি না। তবে বঙ্গবন্ধু যুদ্ধের যে কৌশল জাতির সামনে উপস্থিত করেছিলেন, তা বিস্ময়কর।

জনসভায় মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, ১/১১ ঘটনায় সবচেয়ে লাভবান হয়েছেন বিএনপি এবং বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। বিশেষ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ১/১১ ঘটনা সৃষ্টি হলেও এর সবচেয়ে সুবিধা নিয়েছে বিএনপি। তারা দুর্নীতি-অনিয়মের মধ্য দিয়ে দেশকে নরকে পরিণত করলেও সে সময় রক্ষা পেয়েছিল।

তিনি আরো বলেন, ভুল সংবাদ ছাপিয়ে যারা শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছিল তাদের কোনো ক্ষমা নেই। ষড়যন্ত্রকারীদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর সভাপতিত্বে দলটির উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দিপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন মেয়র আনিসুল হক, দক্ষিণের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন প্রমুখ সভায় বক্তব্য রাখেন।