মেইন ম্যেনু

বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে গলাটিপে হত্যা স্বামী পলাতক

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলর আলাইয়াপুর ইউনিয়নের চন্দ্রগঞ্জ গ্রামে সাবিনা ইয়াছমিন শিল্পী (২০) নামের এক গৃহবধূকে নির্যাতনের পর গলাটিপে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী সহ পরিবারের লোকজন পলাতক রয়েছে।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পুলিশ নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে। নিহত সাবিনা ইয়াছমিন শিল্পী উপজেলার বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের আমানতপুর গ্রামের ফরাজী বাড়ীর সেলিম ড্রাইভারের মেয়ে। সে এক কন্যা সন্তানের জননী।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানায়, সাবিনার বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসার পথে তাকে বিভিন্ন ভাবে উতক্ত্য করত উপজেলার আলাইপুর ইউনিয়নের চন্দ্রগঞ্জ গ্রামের জমদার বাড়ীর আলাম মেম্বারের ছেলে মাকসুদ। এর একপর্যায়ে ২০১০ সালে বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে অস্ত্রের মুখে শিল্পীকে অপহরণ করে নিয়ে বিয়ে করে মাকসুদ। পরে দুই পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি মেনে নেওয়া হয়।

নিহতের ভাই সবুজ অভিযোগ করে জানান, তার ভগ্নিপতি মাকসুদ সন্ত্রাসী ও মাদকাসক্ত এবং তার পরিবারের লোকজন শিল্পীর মাধ্যমে তাদের কাছে যৌতুকের টাকা দাবী করে। তাদের দাবীকৃত যৌতুকের টাকা না পেয়ে বিভিন্ন সময় মাকসুদ ও তার পরিবারের লোকজন শিল্পীকে মারধর করত। সন্ধ্যায় মাকসুদের বড় ভাই মামুন তাকে ফোন করে জানান শিল্পি গলায় ফাঁস দিয়েছে তাই তাদের হাসপাতালে আসতে বলেন।

খবর পেয়ে তারা হাসপাতালে এসে দেখেন শিল্পীর মৃতদেহ রেখে মামুন সহ তার পরিবারের লোকজন পালিয়ে গেছে। সবুজ আরো জানান, নিহত শিল্পীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত ও গলায় আঙুলের চিহ্ন রয়েছে। মাকসুদসহ শ্বশুরের পরিবারের লোকজন তার বোনকে মারধর করে গলাটিপে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেন।

বেগমগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম ফারুক বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। নিহতের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহতের পরিবারকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে।