মেইন ম্যেনু

বেরোবিতে ছাত্র ইউনিয়নের নবীন বরণ অনুষ্ঠিত

এইচ.এম নুর আলম, বেরোবি প্রতিনিধি: রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) নবীনদের বরণ করলো বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ। নবীন বরণে আলোচনা সভার পাশাপাশি সাংাস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে বেরোবি সংসদ।

আজ মঙ্গলবার বেলা ১১ টায় নবীনদের বরণ করে আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বেরোবি সংসদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি স্লোগানকন্যা লাকি আক্তার, ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক সিয়াম সারোয়ার জামিল, বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রিষিণ পরিমল, সিপিবি রংপুর জেলার সাধারণ সম্পাদক শাহীন রহমান।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট বেরোবি শাখার কর্মীবৃন্দ, বাসদ রংপুর জেলার সমন্বয়ক আব্দুল ক্দ্দুুস এবং বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অষ্টম ব্যাচের (২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষ) বিভিন্ন বিভাগের নবীন শিক্ষার্থীবৃন্দ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে গণসঙ্গীত পরিবেশন করে উদীচী বেরোবি সংসদের কর্মীদল। সংসদ সভাপতি এলমিনা মনির সভাপতিত্বে নবীন বরণ ও আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন আলোচিত নেতৃবৃন্দ।

সভায় বাংলা বিভাগের শিক্ষক রিষিণ পরিমল বলেন, “সমাজকে বদল করতে হলে নবীনদেরকেই এগিয়ে আসতে হবে।” শাহীন রহমান তার বক্তব্যে বলেন, “শিক্ষার অর্থ আজ পাল্টে গেছে। বাজারমুখী শিক্ষার কারণে মানুষ আজ প্রকৃত মানুষ হয়ে উঠতে পারছে না। মানুষ হয়ে ওঠার জন্য নতুন ধারার আন্দোলন গড়ে তোলার কোন বিকল্প নেই।” এছাড়াও তিনি এরিস্টটল সক্রেটিসদের জীবন পর্যালোচনা করে শিক্ষার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে তাৎপর্যপূর্ণ কথা বলেন।

লাকি আক্তার তার বক্তব্যে বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ে যেভাবে বরাদ্দ কমিয়ে দেয়া হচ্ছে তাতে শিক্ষা ব্যাবস্থা তিলে তিলে ধ্বংসের মুখোমুখি হচ্ছে। শিক্ষা ব্যাবস্থাকে রক্ষা করতে হলে বাজেটে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বৃদ্ধির কোন বিকল্প নেই।” এছাড়াও বক্তারা পহেলা বৈশাখের আন্দোলনের কথা মনে করিয়ে দিয়ে আগামী পহেলা বৈশাখকে আরও নিরাপদ ও অর্থবহ করে তোলার আহ্বান জানানো হয়।

0987

আলোচনা সভা শেষে ৮ এপ্রিল ছাত্র ইউনিয়ন পরিচালিত কুইজ প্রতিযোগীতার বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয় এবং পুরষ্কার বিতরণ করা হয়। পুরষ্কার বিতরণ করেন ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল মজিদ। সভাপতির ভাষণের মধ্য দিয়ে আলোচনা সভাটি শেষ হয়।

আজ বিকেল ৪ টায় সংসদটির আয়োজনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পর্ব রয়েছে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করবে উদীচী বেরোবি এবং রংপুর জেলা সংসদ।