মেইন ম্যেনু

বৈশাখে চুলের সাজ

সাজ সাজ রবে এগিয়ে আসছে পহেলা বৈশাখ। এরই মধ্যে মনের মাঝে বাজতে শুরু করেছে ঢাকের টাকডুম টাকডুম ঢোল। শুধু কি তাই এর সঙ্গে চাই বৈশাখের পোশাক। আরো কত কী অনুষঙ্গ জিনিস। কত বেছে কত ঘুরে ঘুরে সংগ্রহ করতে হয় নিজের পছন্দের জিনিসটা। কত উত্তেজনা সে সবে। তবে এতো সবের মাঝে প্রিয় চুল সাজানোর কথা? ভেবেছেন?

কীভাবে বৈশাখে সাজাতে চান আপনার চুল। সাধারণত বৈশাখের সকাল বেলায় প্রখর রোদ থাকে। সারাদিন সবার সঙ্গে আনন্দে মেতে থাকা আর ঘোরাঘুরি করতে হয়। তাই যেমনই সাজ হোক না কেন তা যেন হয় আরামদায়ক। যাদের চুল বড় এবং বেঁধে রাখতে পছন্দ করেন, তারা খোপা করে নিতে পারেন।

লম্বা চুলে হাত খোপা, এলো খোপা, ফ্রেঞ্চ খোপা, বেনি অথবা ফ্রেঞ্চ বেনি করে পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ফুল লাগাতে পারেন। যাদের চুল ছোট কিংবা বিভিন্ন ধরনের কাট দেয়া, রিবল্ডিং বা স্ট্রেইট করা তারা খোলা চুলে পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে একপাশে ফুল গুঁজে দিতে পারেন।

উৎসবে ফুলের সাজটা বেশ লাগে। শিউলি, কাশফুল আর সাদা মেঘের ঘনঘটা চারপাশে। চুল সাজাতে নিশ্চয়ই ফুলের কথাই ভাবছেন? চুল সাজাতে ফুলের যে জুড়ি নেই।

খোপায় পরার জন্য তাজা যেকোনো ফুলই সুন্দর লাগবে। তবে গাজরার মালা তার বেশি ভালো লাগে। শাড়ির সঙ্গে মিলিয়ে একই রঙের বা বিপরীত রঙের যেকোনো ফুলই তিনি খোপায় সাজিয়ে নেন। যেমন সাদা শাড়ির সঙ্গে লাল ফুল। লালের সঙ্গে সাদা ফুল। সবুজ, গোলাপি, হলুদ অন্যান্য যেকোনো রঙের শাড়ির সঙ্গে মানিয়ে যায় তেমন ফুলটিই বেছে নেন তিনি। তবে বড় ফুল ব্যবহার করতে পারেন পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে।

তবে সাদা রঙের ফুল যেকোনো পোশাকের সঙ্গেই মানানসই। লাল ঠোঁটে, লাল টিপের সঙ্গে লাল রঙ্গন, গোলাপ, জবা, পরলে ভালো লাগবে। সেই সঙ্গে চুলে করে নিতে পারেন হাত খোপা, বেনি খোপা, উঁচু খোপা, গোল খোপা, পনিটেইল, খেজুর বেনি, ফ্রেঞ্চরোল ইত্যাদি। অনেকগুলো ফুল বাজারে কিনতে পাওয়া না গেলেও নিজ বাগানে অথবা আশপাশের বাড়িতে পাওয়া যায়।

এছাড়া যাদের ঝামেলা একেবারে পছন্দ তাদের জন্য বাজারে রয়েছে বিভিন্ন রঙের গ্ল্যাডিওলাস, জারবেরা, গোলাপ, কাঠবেলি, কাঠগোলাপ ইত্যাদি। সঙ্গে চাই বৈশাখের পোশাক। আরো কত কী অনুষঙ্গ। কত বেছে কত ঘুরে ঘুরে সংগ্রহ করতে হয় নিজের পছন্দের জিনিসটা।