মেইন ম্যেনু

বোলিং শুরু করলেও পুরো ফিট নন মুস্তাফিজ

সাম্প্রতিক সময়ে ক্রিকেট বিশ্বে সবচেয়ে আলোচিত বোলারটির নাম মুস্তাফিজুর রহমান। সেই যে ২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রেখেছেন; এরপর থেকেই ক্রমগাতই বল হাতে জাদু দেখিয়ে চলেছেন তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি বছর ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ক্রিকেটেও আলো ছড়িয়েছিলেন তিনি, সাহায্য করেছেন তার দল সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদকে আসরের শিরোপা জিততে। তবে আইপিএল থেকে ইনজুরি সঙ্গী করে দেশে ফিরতে হয়েছে বাংলাদেশের এই তরুণ পেসারকে। সেই ইনজুরি থেকে এখনো পুরোপুরি মুক্ত পাননি তিনি। যদিও বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) নেটে বোলিং শুরু করেছেন মুস্তাফিজ।

ইনজুরি নিয়ে মে মাসে দেশে ফিরেছিলেন মুস্তাফিজ। বর্তমানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) তত্ত্ববধানে দীর্ঘ মেয়াদি পূনর্বাসন প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছেন তিনি। অবস্থার খানিকটা উন্নতি হওয়ায় মিরপুরে একাডেমিতে বল হাতে অ্যাকশনে দেখা গেছে ‘কাটার মাস্টার’ খ্যাতি পাওয়া মুস্তাফিজকে।

মুস্তাফিজ এদিন নেটে ৬ ওভারের মতো বল করেছেন। তবে বোলিং শুরু করলেও তিনি কিন্তু শতভাগ ফিটনেস ফিরে পাননি এখনো। খেলার মাঠে ফের আগের মতো ছন্দে ফিরতে আরও তিন থেকে চার সপ্তাহ অপেক্ষা করতে হবে তাকে। বৃহস্পতিবার এমনটিই জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ফিজিও বায়েজিদুল ইসলাম খান। বায়েজিদ বলেন, ‘মুস্তাফিজের অবস্থা এখন আগের থেকে ভাল। ইমপ্রুভ হেয়েছে। আজ থেকে সে বোলিং শুরু করেছে। এখান থেকে আস্তে আস্তে সে উন্নতি করবে বলে আশা করছি।’

বায়েজিদ আরও বলেছেন, ‘ওর যে ব্যথা ছিল, তা এখন আর নেই। ব্যথা নেই দেখেই বোলিং শুরু করেছে মুস্তাফিজ। এখন ওর বোলিংয়ের লোডটা ঠিক করা হবে। আপাতত যেভাবে বল করছে, সেভাবেই চলবে; সপ্তাহখানিক এটা চলবে, এরপর এটা আবার ঠিক করা হবে।’

বোলিং করার পর মুস্তাফিজের অবস্থা কেমন মনে হচ্ছে? জানতে চাইলে বায়েজিদ বলেন, ‘না, কোনো পরিবর্তন হয়নি। বোলিংয়ের পরে মেজারমেন্টের কোনো পরিবর্তন হয়েছে কিনা তা চেক করেছি। কিন্ত কোনো পরিবর্তন আমি দেখিনি। আগে যেমন ছিল তেমন্ই আছে। এটা আপাতত তেমন বড় কোনো সমস্যা না। আশা করছি এটা আস্তে আস্তে ঠিক হয়ে যাবে। তবে পুরোপুরি ঠিক হতে তিন থেকে চার সপ্তাহ লেগে যাবে।’