মেইন ম্যেনু

ব্যাভিচারে নারীর মৃত্যুদণ্ড, পুরুষসঙ্গীর ১০০ দোররা!

সৌদি আরবের রাজাধানী রিয়াদে ‘বিবাহবহির্ভূত যৌন সম্পর্কের’ দায়ে শ্রীলঙ্কার এক গৃহকর্মীকে পাথর ছুড়ে হত্যার আদেশ দেয়া হলেও পুরুষের ক্ষেত্রে ছাড় দেয়া হয়েছে। অপরাধ একই হলেও পুরুষ সঙ্গীকে দেওয়া হয়েছে ১০০ দোররা।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, ৪৫ বছর বয়সী ওই বিবাহিত নারী বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্কের বিষয়টি আদালতে স্বীকার করেন। এরপর অগাস্টে সৌদি আরবের একটি আদালত ওই রায় দেয়।

তাকে ক্ষমা করে দেওয়ার জন্য ইতোমধ্যে শ্রীলঙ্কা সরকারের পক্ষ থেকে সৌদি কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক কর্মসংস্থান ব্যুরোর একজন কর্মকর্তা জানান, ২০১৩ সাল থেকে গৃহকর্মী হিসেবে সৌদি আরবে কাজ করছিলেন ওই নারী। তার সঙ্গীও শ্রীলঙ্কার একজন অভিবাসী শ্রমিক।

তিনি অবিবাহিত- এই যুক্তিতে তাকে তুলনামূলক কম শাস্তি, ১০০ দোররা মারার আদেশ হয়েছে।

শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক কর্মসংস্থান ব্যুরোর মুখপাত্র উপল দেশাপ্রিয়া রয়টার্সকে বলেন, “রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার পাশাপাশি ব্যুরোর পক্ষ থেকে ওই নারীর জন্য আইনজীবী নিয়োগ করা হয়েছে। পাশাপাশি বিষয়টি নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে কূটনৈতিক পর্যায়ে আলোচনা চালানো হচ্ছে ।”

ওই নারী ক্ষমা পাবেন কি না- সে বিষয়ে কলম্বোয় সৌদি দূতাবাসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে সাড়া পাওয়া যায়নি বলে রয়টার্সের প্রতিবেদেনে জানানো হয়।

‘শরিয়া’ বা ইসলামী আইন অনুসরণকারী দেশ সৌদি আরবে ‘ব্যভিচার’ ও মাদক পাচারের মতো অপরাধের সাজা মৃত্যুদণ্ড। দেশটির এ ধরনের সাজা ও বিচার পদ্ধতি নিয়ে মানবাধিকার সংগঠনগুলো বরাবরই সোচ্চার।