মেইন ম্যেনু

ব্রণ সারাবে সূর্যের আলো

প্রচণ্ড রোদে নিশ্চয় আপনি তিতিবিরক্ত। বাইরে বেরুলেই ব্যাগে ছাতা, চোখে সানগ্লাস, মুখে সানস্ক্রিন রাখতে হচ্ছে। রোদের ছোঁয়া যেনো না লাগে সেজন্য প্রয়োজনীয় সমস্ত ব্যবস্থাই নেয়া সারা। কিন্তু নাহ! রোদকে অত দূরে সরিয়ে রাখবেন না। চিকিৎসকরা বলেন, যতই আপনার সানট্যান পড়ার ভয় থাকুক রোদের কাছাকাছি আসতেই হবে।

ভালো ঘুম: সূর্যের আলো আমাদের শরীরের সার্কাডিয়ান রিদম ঠিক রাখে। এর ফলে আমরা সহজে ঘুমাতে পারি। আর ঘুমটাও হয় খুব তৃপ্তির।

ফুরফুরে মেজাজ: আপনি যদি অসূর্যস্পশ্যা হয়ে থাকেন তাহলে জানেন কি মেজাজও বিগড়ে যেতে পারে আপনার। সূর্যের আলোয় বেটা-এন্ডরফিন নামের হরমোন নিঃসৃত হয় শরীরে। যা আমাদের মনকে ভাল করে দেয়। অবসাদ কমাতে সাহায্য করে। এই কারণেই অনেক সময় শীতকালে বা মেঘলা নিয়ে আমাদের মন খারাপ করে।

ভিটামিন ডি: সূর্যের আলোর সংস্পর্শে থাকলে আমাদের ত্বকে ভিটামিন ডি তৈরি হয়। মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস, অস্টিওপোরোসিস এবং সাধারণ ফ্লু-এর ঝুঁকি কমায় সূর্যালোক।

ব্রণ কমাতে: পরিমিত পরিমাণ সূর্যের আলোয় আপনার ত্বকে ব্রণের উপদ্রব কমবে। তবে খুব বেশি সূর্যালোক ত্বকের পক্ষে ক্ষতিকারক।

জীবাণু নাশক: দেহের অনেক ছোটখাট জীবাণু সূর্যের আলোয় মরে যায়।

প্রতিরোধ ক্ষমতা: রোদ মানুষের দেহে প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। ফলে রোগ সংক্রমণ কম হয়।

রক্তচাপ কমায়: উচ্চ-রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে সূর্যের আলো।

উচ্চতা বাড়ায়: অনেক সময়ই সদ্যোজাত শিশুকে হালকা রোদে রাখা হয়। এর কারণ হল, গবেষণায় দেখা গিয়েছে শিশুদের উচ্চতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে সূর্যালোক।