মেইন ম্যেনু

ব্রাজিলের কাছে বিধ্বস্ত বলিভিয়া

শক্তির বিচারে ব্রাজিলের ধারেকাছেও নেই তা হারে হারে টের পেলো বলিভিয়া। নেইমারের দুর্দান্ত পারফর্মেন্সে নিজেদের মাঠে বলিভিয়াকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে ব্রাজিল। এ জয়ে নয় ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে তিতের শিষ্যরা।

দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের নবম রাউন্ডের লড়াইয়ে নিজের মাঠে ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক হয়ে খেলতে থাকে ব্রাজিল। ম্যাচের ৭ মিনিটেই গোলের সুযোগ পায় জেসুস। কৌতিনিয়োর বাড়ানো বলে জেসুসের নেওয়া শট ক্রসবারের উপর দিয়ে গেলে গোল বঞ্চিত হয় স্বাগতিক শিবির।

তবে গোলের জন্য খুব বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি স্বাগতকদের। ম্যাচের ১১ মিনিটে গোল করে দলকে লিড এনে দেন দলের সেরা তারকা নেইমার। ম্যাচের ২৬ মিনিটে জুলিয়ানোর বাড়ানো বলে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন লিভারপুল তারকা কুটিনহো। ম্যাচের ৩৯ মিনিটে স্বাগতকদের পক্ষে তৃতীয় গোল করেন ফিলিপে লুইস। নেইমারের বাড়ানো বলে গোলরক্ষককে ফাঁকি দিতে কোন সমস্যা হয়নি অ্যাটলেটিকোর এই তারকার।

প্রথমার্ধের শেষ দিকে গোলের খাতায় নাম লেখান জেসুস। নেইমারের নিখুঁত পাসে গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে বল জালে পাঠান ১৯ বছর বয়সী এই তারকা। ফলে ৪-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় স্বাগতক শিবির।

বিরতি থেকে ফিরে সফরকারীদের উপর চাপ সৃষ্টি বজায় রাখে নেইমার-জেসুসরা। ম্যাচের ৫৪ মিনিটে নেইমারের জোরালো শট ফিরিয়ে দেন বলিভিয়া গোলরক্ষক। পাঁচ মিনিট পর জেসুসের হেড কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান গোলরক্ষক। ম্যাচের ৬৯ মিনিটে প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের কুনুইয়ের আঘাত পাওয়া নেইমারকে তুলে নেন কোচ।

নেইমার উঠে গেলেও অবশ্য গোল পেতে সমস্যা হয়নি নতুন কোচ তিতের অধীনে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাড়ানো ব্রাজিলের। ৭৫তম মিনিটে কৌতিনিয়োর কর্নারে হেডে বল জালে পাঠান লিভারপুলের ফিরমিনো। বাকি সময় আর গোল না হলে ৫-০ গোলের বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল। দিনের অপর ম্যাচে ভেনেজুয়েলাকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে সুয়ারেজের উরুগুয়ে।