মেইন ম্যেনু

ব্লগারদের আশ্রয় দেওয়ার কথা ভাবছে যুক্তরাষ্ট্র

বাংলাদেশের যেসব ব্লগার প্রচণ্ড নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তারা আশ্রয় চাইলে তা অনুমোদন দেওয়ার কথা ভাবছে মার্কিন সরকার। মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের উপ মুখপাত্র মার্ক টোনারের বরাত দিয়ে শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছে প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া।

গত বুধবার পুরান ঢাকায় চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে এবং গুলি করে হত্যা করা হয় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র ও অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট নাজিম উদ্দিনকে। এ ঘটনার পরপর ব্লগারদের আশ্রয় দেওয়ার সম্ভাবনার বিষয়টি জানালো যুক্তরাষ্ট্র। প্রসঙ্গত, ২০১৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত ছয়জন অনলাইন অ্যাকটিভিস্ট, ব্লগার, লেখক ও প্রকাশককে হত্যা করা হয়। এদের সবাইকে একই কায়দায় কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটনে পররাষ্ট্র দপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে উপ মুখপাত্র মার্ক টোনার সামাদের ‘বর্বর হত্যাকাণ্ডের’ তীব্র নিন্দা জানান। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘চরম ঝুঁকির মধ্যে থাকা নির্দিষ্ট সংখ্যক ব্লগারের জন্য এটি একটি বিকল্প হতে পারে।’

বাংলাদেশের মুক্তমনা ব্লগার ও লেখকদের যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় দিতে সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির কাছে সুপারিশ করে ইউএস কমিশন অন ইন্টারন্যাশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডম- ইউএসসিআইআরএফ। ওই চিঠির প্রসঙ্গ তুলে এক সাংবাদিক টোনারের কাছে জানতে চেয়েছিলেন- ব্লগারদের আশ্রয় দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে কোনো অগ্রগতি হয়েছে কি না।

জবাবে টোনার বলেন, এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য হোমল্যান্ড সিকিউরিটির কাছে রয়েছে। তার কাছে এ সংক্রান্ত তেমন তথ্য নেই।

নাজিমের পরিবারের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করে টোনার বলেন, ‘ আমরা নাজিমের পরিবারের প্রতি আমরা গভীর শোক প্রকাশ করছি এবং বাংলাদেশে যারা সহিংস উগ্রবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছেন, তাদের প্রতি আমাদের সমর্থন অব্যাহত থাকবে। ’