মেইন ম্যেনু

‘ভাই দাম কত নিলো কত’

কুরবানির পশু নিয়ে মানুষের কৌতূহলের যেন শেষ নেই। ‘ভাই দাম কত, কত নিলো’ হাট থেকে গরু কিনে বাড়ি ফেরার সময় পথে এমন প্রশ্ন সব পথচারীর। ঈদ উপলক্ষে রাজধানীতে এখন সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত কথা এটিই।

দেখা গেছে, হাট থেকে দূরে বাড়ি হওয়ায় কেউ কেউ গাড়িতে গরু নিয়ে যাচ্ছেন। আবার কেউ হেঁটেই রওনা দিয়েছেন পছন্দের পশু নিয়ে। কোনো কারণে গাড়ির গতি কমে গেলে বা থামতে হলে পাশে দাঁড়ানো লোকটি জানতে চাইছেন কত দিয়ে কেনা হলো পশুটি।

প্রশ্ন কর্তা শতাধিক হলেও উত্তরদাতা কিন্তু একজনই। তাতে কি হয়েছে, কোনো বিরক্তির লেশ নেই। হাসিমুখে জানিয়ে দিচ্ছেন পছন্দের পশুর দাম।

সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন মুসলমানরা। মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের বছরে দুটি ঈদ উৎসব। তবে আসন্ন ঈদকে ‘কুরবানির ঈদ’ বলে থাকেন অনেকে। দেশজুড়ে কুরবানির গরু বা ছাগল বেঁচাকেনা নিয়েই ঈদের আগের এক সপ্তাহ ব্যস্ত থাকে সবাই।

রাজধানীর মিরপুরে হাবিব নামের একজন গাবতলী থেকে কেনা গরু নিয়ে ফিরছিলেন। তিনি জানান, গরুটি কেনা হয়েছে ৬৮ হাজার টাকায়। হাসিল দিয়ে দাম পড়েছে প্রায় ৭১ হাজার টাকা।

তিনি আরো বলেন, হাট থেকেই এই প্রশ্নের উত্তর দিতে দিতে আসছি। হাটেই অনেকে জানতে চেয়েছেন। প্রথম দিকে ভালো লাগছিল। এরপর রাস্তার এতো মানুষ এই প্রশ্ন করেছে, উত্তর দিতে দিতে এখন বিরক্ত লাগছে। তারপরও বলতে হচ্ছে। এর মধ্যেও এক ধরনের আনন্দ পাচ্ছি। বাজারে পশুর দাম এবার অনেক বেশি। তবুও পছন্দের গরুটি কিনতে পেরে খুশি বলে তিনি জানান।

পশুর হাটে গরু কিনতে যাবেন রাজধানীর মিরপুরের কালসির বাসিন্দা ইকতেদার হায়দার। রওনা দেয়ার আগে বিভিন্ন পশুর দাম জানতে চাচ্ছেন তিনি। জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিজের কুরবানির পশুটি এখনো কিনিনি। যারা কিনে নিয়ে যাচ্ছেন তাদের কাছে দাম জেনে বাজারে গেলে একটু সুবিধা হয়।

রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা কয়েকজন যুবকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শুধু কৌতুহলবসতই তারা জানতে চাচ্ছেন পশুর দাম। দাম জেনে নিজেদের মধ্যে তা নিয়ে আলাপ-আলোচনা করছেন।