মেইন ম্যেনু

ভারতকে ৫রানে হারিয়ে দ. আফ্রিকার জয়

টি২০ সিরিজের মতো ওয়ানডেতেও প্রবল আধিপত্য বজায় রেখেছে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা। কানপুরে রোববার প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে স্বাগতিক ভারতকে পাঁচ রানে হারিয়েছে ভিলিয়ার্স শিবির। ফলে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ১-০তে এগিয়ে গেল প্রোটিয়া শিবির। এর আগে তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজ দক্ষিণ আফ্রিকা জিতেছিল ২-০ ব্যবধানে। তৃতীয় টি২০ ম্যাচ বৃষ্টিতে পণ্ড হয়েছিল।

টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক ডি ভিলিয়ার্সের অপরাজিত ঝড়ো সেঞ্চুরির (৭৩ বলে ১০৪) সুবাদে পাঁচ উইকেটে ৩০৩ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা। জবাবটা প্রথম দিকে ভালোই দিয়েছিল ভারত। রোহিত শর্মা হাঁকান ১৫০ রানের দারুণ এক ইনিংস। তারপরও লোয়ার অর্ডারের ব্যর্থতায় নির্ধারিত ৫০ ওভারে সাত উইকেটে ২৯৮ রানে থামে ভারতের ইনিংস। ফলে পাঁচ রানের রুদ্ধশ্বাস জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা।

লক্ষ্য ৩০৪ রান। ঘরের মাঠে বিশ্বমানের ব্যাটিং লাইন নিয়ে ভারত ছিল বেশ আত্ববিশ্বাসী। রোহিত শর্মার সাবলিল ব্যাটিং সেই বিশ্বাসে লাগিয়েছিল স্বস্তির বাতাস। দলীয় ৪২ রানে ধাওয়ান (২৩) মরকেলের শিকার হলেও রাহানেকে নিয়ে বড় জুটিই গড়েন রোহিত। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তারা তোলেন ১৪৯ রান। ম্যাচ তখন ভারতের নাগালে।

কিন্তু শেষটা সুখকর হয়নি ভারতের। ৬০ রানে বিদায় নেন রাহানে। দলীয় রান তখন ১৯১। এরপর দ্রুত বিদায় নেন কোহলিও (১১)। তবে এক প্রান্ত আগলে রেখে দুর্দান্ত ব্যাটিং করে যাচ্ছিলেন রোহিত শর্মা। ফলে রানের চাকা ছিল সচল। দলীয় ২৬৯ রানে থামেন রোহিত। ১৫০ রান করা রোহিতকে ফেরান প্রোটিয়া স্পিনার ইমরান তাহির।

এরপর ধোনি চেষ্টা করেছিলেন জয়ের বন্দরে দলকে পৌঁছাতে। তবে পারেননি, ৩১ রান করে তিনি বিদায় নেন রাবাদার বলে। শেষ দিকে উইকেট থাকলেও প্রয়োজনীয় রান আর আসেনি। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে রাবাদা ও ইমরান তাহির দুটি, স্টেইন, মরকলে, বেহারদিয়েন একটি করে উইকেট নেন।

৭৩ বলে অপরাজিত ১০৪ রান করার সুবাদে ম্যাচ সেরা হন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক এ বি ডি ভিলিয়ার্স। বিফলে যায় রোহিতের ১৫০ রানের ইনিংস। আগামী ১৪ অক্টোবর ইন্দোরে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচ।