মেইন ম্যেনু

ভারতের কাছে বিধ্বস্ত পাকিস্তান

ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ মানেই যে টান টান উত্তেজনা, সেটা আরো একবার প্রমাণিত হল।

ভারতের বিপক্ষে এশিয়া কাপে লো স্কোরিং ম্যাচেও দারুণ উত্তেজনা ছড়িয়েছে। তৈরি হয়েছিল রুদ্ধশ্বাস অবস্থা।

তবে সবকিছু সামাল দিয়ে দিনশেষে বিজয়ী ভারত। পাকিস্তানের দেয়া ৮৪ রানের টার্গেট টিম ইন্ডিয়া ছুঁয়ে ফেলে ১৫.২ ওভারে।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পরে পাকিস্তান। সেটা আর সামাল দিতে পারেনি তারা। শেষ পর্যন্ত ১৭.৩ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ৮৩ রানের বেশি করতে পারেনি আফ্রিদিরা।

৮৪ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসে ভারত। সেখান থেকে বিরাট কোহলি ও যুবরাজ সিং দলকে টেনে তোলেন। জয়ের স্বাদ দেন।

বিপর্যয়ের সময় কোহলি ৫১ বলে ৪৯ রানের ইনিংস খেলে শেষ দিকে আউট হন। আর যুবরাজ ৩২ বলে ১৪ রান করে অপরাজিত থাকেন। তার সঙ্গে ধোনি ৭ রানে অপরাজিত থাকেন।

বল হাতে ইনিংসের শুরুতে ভারত শিবিরে রীতিমতো আগুন ছড়িয়ে দেন মোহাম্মদ আমির। ভারতের প্রথম তিনটি উইকেটের তিনটিই নেন তিনি। আমিরের করা প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই এলবিডব্লিউর শিকার হন রোহিত শর্মা (০)। চতুর্থ বলে আজিঙ্কা রাহানেকে (০) এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন আমির।

এরপর নিজের দ্বিতীয় ওভারে এসে রায়নাকে নিজের তৃতীয় শিকারে পরিণত করেন নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরা মোহাম্মদ আমির।

চতুর্থ উইকেট জুটিতে ভারতকে টেনে তোলেন কোহলি ও যুবরাজ। তারা দুজন অবিচ্ছিন্ন থেকে ৬৮ রান তোলেন। এরপর সামির বলে এলবিডব্লিউ হন কোহলি (৪৯)। কোহলির বিদায়ের পর রানের খাতা খোলার আগে আউট হন হার্দিক পান্ডে। শেষ পর্যন্ত ধোনির হাত ধরেই জয়সূচক রান আসে। ১৫.৩ বলে ৫ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে নোঙর করে ভারত।

এর আগে, টস হেরে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারের চতুর্থ বলে নেহেরার শিকারে পরিণত হন মোহাম্মদ হাফিজ (৪)। চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলে রাহানের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন শারজিল খান (৭)। বোলার ছিলেন বুমরাহ। ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলে রান আউটে কাটা পড়েন খুররাম মঞ্জুর (১২)।

সপ্তম ওভারের শেষ বলে ধোনির হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন শোয়েব মালিক (৪)। বোলার ছিলেন হার্দিক পাণ্ডে। অষ্টম ওভারের প্রথম বলেই ওমর আকমলকে (৩) আউট করেন যুবরাজ। অষ্টম ওভারের শেষ বলে রান আউটের শিকার হন বুমবুম আফ্রিদি (২)।

১২তম ওভারের চতুর্থ বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন ওয়াহাব রিয়াজ (৪)। বোরার ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। ১৬তম ওভারের প্রথম বলেই বোল্ড হয়ে যান সরফরাজ আহমেদ (২৫)। বোলার রবীন্দ্র জাদেজা। ১৮ ওভারের দ্বিতীয় বলে পান্ডের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন সামি। আর তৃতীয় বলে মোহাম্মদ আমিরকে বোল্ড করে নিজের ঝুলিতে ৩ উইকেট পোরেন।

ব্যাট হাতে পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ২৫ রান করেন সরফরাজ আহমেদ। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৫ রান আসে অতিরিক্ত খাত থেকে। ১০ রান করেন খুররাম মঞ্জুর।

দুই দল এখন পর্যন্ত ৬টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে। ৬ ম্যাচে ভারতের জয় ৪টিতে। পাকিস্তানের মাত্র ১টিতে। ১টি ম্যাচ ফল নির্ধারণ হয়েছে বল আউটে। সে ম্যাচেও জয় পেয়েছিল ভারত।

সে হিসেবে ৬টির ৫টিতেই জয় ভারতের। ভারত-পাকিস্তানের সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি যুদ্ধ হয়েছিল ঢাকার মিরপুরেই। অনুমিতভাবেই জয় পায় ভারত। বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের ম্যাচে পাকিস্তানকে নিজেদের সামনে দাঁড়াতে দেয়নি ভারত।