মেইন ম্যেনু

ভারতে নারী ভাড়া দিয়েছেন নিজের গর্ভ

ভারতে দিন দিন বেড়ে চলেছে সারোগেট মায়ের সংখ্যা। আর্থিক সচ্ছ্বলতা পেতে মূলত নিম্নবিত্ত পরিবারের নারী ভাড়া দিচ্ছেন নিজের গর্ভ। আর এর মাধ্যমে নিঃসন্তান দম্পতি পাচ্ছেন পরম কাঙ্ক্ষিত সন্তান।

এই নিয়ে তিনবার গর্ভধারণ করলেন পায়েল প্যাটেল। তবে প্রথমবার ছাড়া আর দুবারই তিনি গর্ভধারণ করেছেন অর্থের বিনিময়ে এবং অন্য দম্পতির জন্য। সন্তান জন্ম দিতে আট মাস ধরে তিনি আছেন এই হোস্টেলে। যেখানে তার মতো আরো ৬৫ নারী ভাড়া দেয়েছেন নিজেদের গর্ভ।

সারোগেট মাদার বলেন, আমি জানি আমাকে আবারো অস্ত্রপচারের মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। কিন্তু তেমন ভয় পাচ্ছি না। তাড়াতাড়ি সন্তান পৃথিবীতে এলেই আমি বাড়ি ফিরে যেতে পারব। ল্যাবরেটরিতে নিষিক্ত হওয়া ডিম্বানু গর্ভে প্রতিস্থাপনের এই পদ্ধতি ভারতে আইনগতভাবে স্বীকৃত। পায়েলকে এ কাজে উৎসাহ দিয়েছিলেন তার স্বামী। প্রথমে ও রাজি হতে চায়নি। কিন্তু পরে তাকে বুঝিয়েছি এটা তার সন্তান নয়, সে শুধু তাকে নয় মাস গর্ভে ধারণ করছে মাত্র।

চার বছর আগে এই প্রক্রিয়ায় জমজ শিশুর জন্ম দিয়েছিলেন পায়েল। বিনিময়ে ব্রিটিশ দম্পতির কাছ থেকে মিলেছিল আট হাজার ডলার সেই অর্থ দিয়েই নির্মিত হয়েছে নিজেদের ঘর। আমি কাজটা করেছি নিজের ছেলের কথা ভেবে। দ্বিতীয়বার গর্ভ ভাড়া দিয়ে পাওয়া অর্থ তার পড়াশোনার জন্য রেখে দিতে চাই।

সারগোট মাদার পদ্ধতি কেন্দ্র করে সারা ভারতেই গড়ে উঠছে বিভিন্ন ক্লিনিক। সরকারের একটি সংস্থার হিসেবে ভারতে এ ধরনের বৈধ, অবৈধ ক্লিনিকের সংখ্যা প্রায় ১৪০০। সন্তান লাভের আশায় এসব ক্লিনিকে ভারতীয়দের পাশাপাশি ভিড় করছেন বিদেশিরাও।