মেইন ম্যেনু

ভালোবাসায় সিক্ত প্রধানমন্ত্রী

দলীয় নেতা-কর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছা আর ভালোবাসায় সিক্ত হলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার সন্ধ্যা যখন ৬.৫০ মিনিট, তখনই ঢাকার হজরত শাহজালাল (র.) বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানটি অবতরণ করে। প্রায় দেড় ঘণ্টা বিলম্বে বিমানটি অবতরণ করে।

প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দর থেকে বের হন সন্ধ্যা ৭টার দিকে। এ সময় তাকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

প্রধানমন্ত্রী দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের সবার সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে বুকে জড়িয়ে নেন দলের সভাপতিমণ্ডলীর জ্যেষ্ঠ সদস‌্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী।

বিমানবন্দরে স্বাগত জানানোর সময় উপস্থিত ছিলেন দলের জ্যেষ্ঠ নেতা আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররাফ হোসেন, মহীউদ্দীন খান আলমগীর, ওবায়দুল কাদের, দীপু মনি, ফারুক খান, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, আসাদুজ্জামান নূর, এ বি তাজুল ইসলাম, আবদুর রাজ্জাক, সাহারা খাতুন, এ কে এম রহমতউল্লাহ, কামরুল ইসলাম, আবদুস শহীদ, আবদুর রহমান, আব্দুল মান্নান, মুজিবুল হক, আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, তারানা হালিম, মেহের আফরোজ চুমকি, ইসমত আরা সাদেক, হাবিবুর রহমান খান সিরাজ, নাহিম রাজ্জাক।

আরো উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম ও তারিক আহমেদ সিদ্দিক এবং ঢাকা সিটি করপোরেশনের দুই মেয়র আনিসুল হক ও সাঈদ খোকন।

নেতাদের নিয়েই বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে আসেন প্রধানমন্ত্রী। আর তখনই সারিবদ্ধভাবে উপস্থিত দলের হাজারো নেতা-কর্মী জয়বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অভিবাদন- লাল গোলাপ শুভেচ্ছা- স্লোগানে মুখরিত করে তোলেন পুরো এলাকা। নেতা-কর্মীরা যে যেভাবে পেরেছেন প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীও দুই হাত নেড়ে তাদের অভিবাদনের জবাব দেন। এয়ারপোর্ট থেকে গণভবনে উপস্থিত হাজার হাজার নেতা-কর্মী ও সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় নেতা-কর্মীদের গণসংবর্ধনার মধ্যদিয়ে গাড়িবহর নিয়ে সন্ধ্যা ৭টা ২৯মিনিটে গণভবনে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গণসংবর্ধনা উপলক্ষে দুপুর ২টা থেকেই এয়ারপোর্ট থেকে গণভবন পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের নেতা-কর্মীরা রাস্তার দুইপাশে ব্যানার, ফেষ্টুন নিয়ে অবস্থান করেন। নেতা-কর্মীদের কেউ কেউ আসেন বাদ্যযন্ত্র নিয়ে। আবার কেউ আসেন ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে।

কানাডায় গ্লোবাল ফান্ড এবং যুক্তরাষ্ট্রে জাতিসংঘের ৭১তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে গত ১৪ সেপ্টেম্বর ঢাকা ত্যাগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

কানাডা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে তিনি বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধান, রাজনৈতিক, সামাজিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। জাতিসংঘের ৭১তম অধিবেশনে ভাষণ দেন। দক্ষ রাষ্ট্র পরিচালনা ও বহুমাত্রিক অবদানস্বরূপ জাতিসংঘ তাকে ‘প্ল্যানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ ও ‘এজেন্ট অব চেঞ্জ অ্যাওয়ার্ডে’ ভূষিত করে। দেশের জন্য বিরল সন্মান বয়ে আনায় আজ শুক্রবার দেশে ফেরা উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের নেতা-কর্মীরা বিমানবন্দর থেকে গণভবন পর্যন্ত গণসংবর্ধনার আয়োজন করে।