মেইন ম্যেনু

ভালো কাজের জন্য পুরস্কৃত হলেন ১৮ পুলিশ

রাজধানীর অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, তদন্ত পরিচালনা ও ভালো কাজের জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) উপ-কমিশনার থেকে উপ-পরিদর্শক পর্যন্ত ১৮ পুলিশ সদস্যকে পুরস্কৃত করেছেন কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।

ডিএমপি হেড কোয়ার্টার্সে বৃহস্পতিবার মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় ১৮ পুলিশ সদস্যকে পুরস্কৃত করেন কমিশনার। মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে রাজধানীর আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি, অপরাধপ্রবণতা ও বিভিন্ন মামলার তদন্ত বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

এদের মধ্যে— পঞ্চমবারের মতো ‘শ্রেষ্ঠ উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি)’ পুরস্কার পেয়েছেন তেজগাঁও জোনের ডিসি বিপ্লব কুমার সরকার। অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও তদন্ত পরিচালনার জন্য মোহাম্মদপুর জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি) হাফিজ আল ফারুক, পল্লবী জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) এ বি এম জাকির হোসনে, ওয়ারী জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) নুরুল আমিন, গেন্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মিজানুর রহমান, গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ফিরোজ কবীর ও পল্লবী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ রাসেল পুরস্কার পান।

এ ছাড়াও মামলার রহস্য উদঘাটনের জন্য উইমেন সাপোর্ট অ্যান্ড ইনভেস্টিগেশনের সহকারী পুলিশ কমিশনার হোসনে আরা বেগম, রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম, মোহাম্মদপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জানে আলম মুন্সী, রূপনগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মতলুবুর রহমান, কামরাঙ্গীরচর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. কামরুজ্জামান ও মো. হিমায়েত হোসেন, দারুস সালাম থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সাইফুল ইসলাম, যাত্রাবাড়ী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) পরিমল চন্দ্র দাস পুরস্কার পান।

ছিনতাইকারী গ্রেফতারের জন্য ডিএমপির (উত্তর) ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক (টিআই) মো. আব্দুল আলীম চৌধুরী এবং উত্তম কাজে পুলিশের ভাবমূর্তি বৃদ্ধির জন্য মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের কনস্টেবল লিটন সুতারকে পুরস্কৃত করা হয়।