মেইন ম্যেনু

ভিসিকে অবরুদ্ধ: ছাত্রলীগ নেতাদের চাকরি দাবি

কাফনের কাপড় মাথায় দিয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) বিভিন্ন পদে চাকরির চেয়ে আন্দোলন করেছে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার চাকরির দাবিতে তারা প্রশাসন ভবনে উপাচার্য কার্যালয়ে সামনে অবস্থান নিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল হাকিম সরকারকে তার অফিসে সাড়ে তিন ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। এসময় তারা আসন্ন সিন্ডিকেট বাতিলের দাবি জানায়। পরে সিন্ডিকেট স্থগিতের আশ্বাসে তারা আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেয়।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, চাকরির দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীরা মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে প্রশাসন ভবনে বিভিন্ন অফিস থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বের করে দেয় চাকরি প্রত্যাশীরা। এসময় তারা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চাকরি প্রত্যাশীরা উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। এসময় চাকরি প্রত্যাশীদেরকে মাথায় কাফনের কাপড় পড়ে থাকতে দেখা গেছে। বিকাল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত তারা উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। ফলে বেলা সাড়ে ১২টা থেকে বিকাল তিনটা পর্যন্ত সাড়ে তিন ঘন্টা উপাচার্য অধ্যাপক আবদুল হাকিম সরকার তার কার্যালয়ে অবরুদ্ধ ছিলেন। এসময় উপাচার্য অফিসে প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান ও ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ছিলেন।

অবস্থান ধর্মঘট চলাকালে চাকরি প্রত্যাশীদেরকে স্থানীয় রাজনীতিবীদদের নামে শ্লোগান দিতে দেখা গেছে। আন্দোলনের এক পর্যায়ে চাকরি প্রত্যাশীদের দাবির সাথে ঝিনাইদহ আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাংসদ আব্দুল হাই এবং আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ একাত্মতা ঘোষণা করেছেন বলে চাকরি প্রত্যাশী মিজানুর রহমান টিটু মাইকে ঘোষণা দেন। এ বিষয়ে পরে আওয়ামী নেতাদের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তারা বিষয়টি অবগত নন বলে জানান। জানা গেছে, আন্দোলনের এক পর্যায়ে পুলিশ চাকরি প্রত্যাশীদের সরিয়ে দিতে চাইলে পুলিশের সাথে তাদের ধস্তাধস্তি হয়।

চাকরি প্রত্যাশী মিজানুর রহমান টিটু বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে আশ্বাস দিয়েছিল আসন্ন সিন্ডিকেটে আমাদের চাকরির বিষয়টি নিশ্চিত হবে। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আমাদের সাথে না যোগাযোগ করেই আগামী ১১ মার্চ সিন্ডিকেটের তারিখ ঘোষণা করেছে। তিনি বলেন, আমাদেরকে চাকরির বিষয়ে নিশ্চয়তা দিয়ে সিন্ডিকেটের তারিখ ঘোষণা করতে হবে। অন্যথায় আমাদের কর্মসূচি চলবে।’

জানা গেছে, বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আগামী ১১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য সিন্ডিকেট সাময়িক স্থগিত ঘোষণা দিলে চাকরি প্রত্যাশীরা তাদের কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেয়।

প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যায় কর্তৃপক্ষ সিন্ডিকেট সভা সাময়িক স্থগিত ঘোষণা করায় তারা তাদের কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নিয়েছে।’

উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল হাকিম সরকার বলেন, ‘তাদের দাবির বিষয়টি বিবেচনাধীন আছে। সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে এবং অনুকূল পরিবেশ তৈরি হলে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’



« (পূর্বের সংবাদ)