মেইন ম্যেনু

ভুলেও দুইবার ভাত গরম করবেন না! না হলে আপনার সাথেও হতে পারে এমনটি…

দুবেলা পেট পুরে ভাত না খেলে যেন বাঙালির চলে না! আর দুবেলা ভাত খাওয়ার জন্যে অনেকেই একবেলা রেঁধে রাখেন ভাত। আর তাতেই লুকিয়ে রয়েছে বিপদ! হ্যাঁ, ঠিকই বুঝেছেন তাতেই রয়েছে বিপদ। কারণ গবেষণা বলছে একবার তৈরি হয়ে যাওয়া ভাত নাকি দুবার গরম করতে নেই। শুধু ভাতই নয়, এমন কয়েকটি খাবার পুনরায় গরম করা একদমই উচিত নয়। গবেষকরা জানাচ্ছেন, ভাত, ডিম বা আলুর তৈরির খাবার পুনরায় গরম করলে পুষ্টিগুণ চলে যাওয়ার পাশাপাশি ক্ষতিকরও হতে পারে।

ভাত: ব্রীটেনের ‘ফুড স্ট্যান্ডার্ড এজেন্সি’র গবেষণা অনুসারে ভাত রান্নার পর যদি দীর্ঘ সময় সাধারণ তাপমাত্রায় রাখা থাকে তাহলে ‘ব্যাসিলাস সিরিয়াস’ নামক এক প্রকার ব্যাক্টেরিয়া তৈরি হতে থাকে। ওই রেখে দেওয়া ভাত পুনরায় গরম করা হলেও ব্যাক্টেরিয়া নষ্ট হয় না। এটা খেলে ডায়রিয়া এবং বমি হওয়ার সমস্যা হতে পারে। তাই ভাত রান্না করে রেখে না দিয়ে বরং যখন খাওয়ার সময় হবে তার কিছুক্ষণ আগে রান্না করে নেওয়াই ভালো।

ডিম: ডিমের মধ্যে নির্দিষ্ট পরিমাণে সালমোনেলা নামক ব্যাক্টেরিয়া থাকে। আগেই তৈরি করা ডিমঝুরি বা সিদ্ধডিম পুনরায় মাইক্রোওভেনে গরম করলে তাপ সমানভাবে ছড়িয়ে পড়ে না, তাই এই ব্যাক্টেরিয়া দূর হয় না। তাছাড়া ডিম গরম করার ফলে এর প্রোটিন ভেঙে যায় যা পেটের জন্য ক্ষতিকর।

মাশরুম: ‘ইউরোপিয়ান ফুড ইনফরমেশন কাউন্সিল’য়ের মতে মাশরুমে রয়েছে প্রোটিন। যা বিভিন্ন এনজাইম এবং অনুজীব নষ্ট করে ফেলে। আর মাশরুম পুনরায় গরম করলে এই প্রক্রিয়া আরও দ্রুত হয় যা হজম প্রক্রিয়ায় ব্যঘাত ঘটায়।

আলু: রান্নার পর সাধারণ তাপমাত্রায় রাখা হলে এক ধরনের ব্যাক্টেরিয়ার বিস্তার করে। বিশেষত যদি বায়ুনিরোধক পাত্রে রাখা হয় তখন অক্সিজেনের অভাবে এই ব্যাক্টেরিয়ার সংক্রমণ বৃদ্ধি পায়। গরম করার পরেও এই ব্যাক্টেরিয়া মরে না। তাই এই সমস্যা এড়াতে রান্না করা আলু ফ্রিজারে ঠাণ্ডা করে সংরক্ষণ করতে হবে।

বিট: এতে রয়েছে উচ্চমাত্রার নাইট্রেইট, যা পুনরায় গরম করা হলে বিষাক্ত হয়ে যেতে পারে। নাইট্রেইট ক্যান্সারের জন্য দায়ী। তাই এই সবজি ঠাণ্ডা অবস্থায় খেতে হবে।