মেইন ম্যেনু

ভূমিকম্পে চট্টগ্রামে হেলে পড়েছে বেশ কয়েকটি ভবন

শক্তিশালী ভূমিকম্পে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে বেশ কয়েকটি ভবন হেলে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে তিনটি ভবন হেলে পড়ার কথা নিশ্চিত করেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের লিডার বিশু কুমার দাশ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে বুধবার সন্ধ্যা ৭টা ৫৫ মিনিটে বন্দরনগরী চট্টগ্রামসহ সারাদেশে তীব্র ভূমিকম্প অনুভূত হয়। মার্কিন জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) জানায়, রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৯। ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল মিয়ানমারের মাওলাইকে। ভূমিকম্পে গভীরতা ছিল ১৩৫ কিলোমিটার। আনুমানিক স্থায়ীত্বকাল ছিল ১ মিনিটের মতো।

আর এতেই হেলে পড়েছে বেশ কয়েকটি ভবন। হেলে পড়া ভবনগুলো হলো- সাগরিকা শিল্প এলাকার ভিএস গার্মেন্টের পরিত্যক্ত গুদাম, নগরীর কোতোয়ালি থানার জুবলি রোডের বন্দর গাঁ হোটেল ও হালিশহর বি ব্লকের একটি ভবন। এছাড়া চান্দগাঁও আবাসিক এলাকার বি ব্লকের ৮নং সড়কের একটি ভবন হেলে পড়ার খবর পাওয়া গেছে।

এছাড়া ফায়ার সার্ভিস নিশ্চিত না করলেও স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, নগরীর হকার্স মার্কেটের বিপরীতে বিএম সুপার মার্কেটের ভবনটি পাশের সিদ্দিক শপিং কমপ্লেক্সের গায়ে হেলে পড়েছে। নগরীর ঝাউতলা এলাকায় টাইটানিক বিল্ডিং নামে একটি ভবন পাশের একটি ভবনে হেলে পড়ারও খবর পাওয়া গেছে।

চট্টগ্রাম আবহাওয়া অফিস সূত্র জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রামে সবচেয়ে বেশি মাত্রায় ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। উত্তরাঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থানের তাৎক্ষণিক পর্যবেক্ষণে এ তথ্য জানা গেছে বলে নিশ্চিত করেছে সূত্রটি।

এ সময় আতঙ্কে নগরীর বহুতল ভবনের বাসিন্দারা নিচে খোলা জায়গায় নেমে আসে। সবার চোখেমুখে ছিল আতঙ্ক। বেশ কয়েকজন বয়স্ক মানুষের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, তারা নিকট অতীতে এতো জোরালো ভূমিকম্প কখনো দেখেননি।