মেইন ম্যেনু

ভেস্তে যাবে কি সিংহ শিকার, প্রশ্ন ভারতীয় মিডিয়ার

ভেস্তে যাবে কি সিংহ শিকার, প্রশ্নটি ভারতের জনপ্রিয় বাংলা মিডিয়া আনন্দবাজার পত্রিকার। তারা শিরোনামটিও করেছেন চমকপ্রদ।

‘ভিলেন বৃষ্টি, ভেস্তে যাবে কি সিংহ শিকার?’ এই শিরোনামে আনন্দবাজার লিখেছে- ওয়ানডে-তে সিংহ শিকারের পর টেস্টেও যখন বিক্রম দেখাতে শুরু করল বাংলাদেশ, ঠিক তখনই বাদ সাধলেন খোদ বরুণদেব। বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুরু হওয়া মুষলধারায় বৃষ্টি শুধুমাত্র চতুর্থ দিনের খেলাই পণ্ড করল না, বড়সড় প্রশ্নচিহ্ণ রেখে দিল পঞ্চম দিনের খেলার উপরেও। ফলে এ ক্ষেত্রে টেস্টের নায়ক যদি হয় মুস্তাফিজুর-সাকিব, ভিলেন তা হলে অবশ্যই বৃষ্টি।

সংবাদটিতে আরো লেখা হয়- তৃতীয় দিনের প্রথম দু’টি সেশনে বাংলাদেশ রাজত্ব করলেও শেষ সেশনে ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। তুল্যমূল্য তৃতীয় দিনের পর চতুর্থ দিনে যখন ফের এক ধুন্ধুমার যুদ্ধ দেখার আশা করছিল ক্রিকেটপ্রেমীরা, তখনই বাদ সাধল বৃষ্টি। আর যার জেরে চতুর্থ দিনের খেলাই শুরু হতে পারল না চট্টগ্রামের জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে।

শুক্রবার ভোর থেকেই ভারি বৃষ্টি শুরু হয় চট্টগ্রামে। সকালের দিকে একটু কমলেও বেলা দশটা থেকে ফের মুষলধারায় শুরু হয় বৃষ্টি। তখনই এ দিনের প্রথম সেশনের খেলা বাতিল বলে ঘোষণা করেন দুই আম্পায়ার। কিন্তু নাগাড়ে বৃষ্টি হওয়ায় বেলা দেড়টা নাগাদ সারা দিনের মতোই বাতিল ঘোষণা হয় খেলা।

তবে চলতি টেস্ট যে পঞ্চম দিনে গড়াবেই, সকালের বৃষ্টির পরেই তা পরিস্কার হয়ে যায়। বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম টেস্টের চতুর্থ দিন বৃষ্টির জন্য একটাও বল পড়ল না। চট্টগ্রামে এ দিন এত বৃষ্টি হয় যে, দু’দলের প্লেয়াররা প্রথমে হোটেল থেকেই বেরোতে পারেননি। দুপুরের দিকে বাংলাদেশের কয়েকজন মাঠে গিয়ে লাঞ্চ সারলেও ম্যাচ খেলা সম্ভব হয়নি।