মেইন ম্যেনু

ভোলার চর কুকরি-মুকরিতে হচ্ছে ইকোপার্ক

পরিবেশ ও বন অধিদফতরের আওতায় চরফ্যাশনের দক্ষিণাঞ্চলীয় দ্বীপ চর কুকরি-মুকরিতে ইকোপার্ক স্থাপনের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এ প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়। চর কুকরি-মুকরি ইউনিয়নকে জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষার জন্য বেড়িবাঁধ হচ্ছে। বাঁধ নির্মাণের জন্য জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ড থেকে ১৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ১৫ বর্গকিলোমিটার আয়তনের কুকরি ইউনিয়নের চারপাশে বেড়িবাঁধ নির্মাণে ৫২ কোটি টাকার প্রকল্প তৈরি করেছে। চর কুকরি-মুকরি ইকোপার্ক স্থাপনের লক্ষ্যে প্রকল্পের আওতায় পর্যটকদের জন্য বিশ্রামাগার নির্মাণ, পর্যটন টাওয়ার নির্মাণ, মিঠা পানির পুকুর খনন, জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষার জন্য দৃষ্টিনন্দন কিল্লা, পিকনিক স্পট নির্মাণ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বিচ্ছিন্ন এ কুকরি-মুকরি একটি আকর্ষণীয় ইকোপার্ক হিসেবে গড়ে উঠবে এবং চিত্তবিনোদন, শিক্ষা গবেষণা ও জীববৈচিত্র্য কেন্দ্র হিসেবে এর প্রসার ঘটবে। প্রস্তাবিত সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি করতে পারলে চর কুকরি-মুকরি দেশী-বিদেশী পর্যটকদের আকৃৃষ্ট করতে সক্ষম হবে।

ফলে উল্লেখযোগ্য সরকারের রাজস্ব আদায় যেমন সম্ভব হবে, তেমনি নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে। ফলে দারিদ্র্য বিমোচনের মাধ্যমে স্থানীয় অর্থনীতির ওপর ইতিবাচক প্রভাব বিস্তার করবে বলে স্থানীয়রা জানান। দ্বীপজেলা ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে সাগর মোহনায় জেগে ওঠা দ্বীপচর কুকরি-মুকরি। চারশ বছরের এ প্রাচীণ দ্বীপের স্থায়ীত্ব বৃদ্ধির জন্য আশির দশকের প্রথমার্ধ থেকে এখানে বনায়নের কাজ শুরু করা হয়।

বর্তমানে এ চরের প্রাকৃতিক নৈসর্গের অন্যতম অংশজুড়ে আছে দৃষ্টিনন্দন ম্যানগ্রোভ বাগান আর নানা প্রজাতির বন্যপ্রাণী। জেলা সদর থেকে প্রায় ১১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় সাগর মোহনায় কুকরি-মুকরির অবস্থান। আয়তন নতুন চরসহ ১২০ বর্গকিলোমিটার। বর্তমান লোক সংখ্যা ২৬ হাজার। চরফ্যাশন কচ্ছপিয়া ঘাট থেকে নৌকা, ট্রলারে ৫ কিলোমিটার মেঘনা মোহনা অতিক্রম করে এ দ্বীপে পৌঁছতে হয়। ছবির মতো দ্বীপটিকে ঘিরে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে ২২ হাজার একর ম্যানগ্রোভ বাগান।

এছাড়া জীববৈচিত্র্যের এক বিপুল সমারোহ। সমুদ্রবেষ্টিত অবস্থান, চিতাবাঘ, হরিণ, বানর সহ নানা প্রজাতির বন্যপ্রাণী ভরপুর ম্যানগ্রোভ বাগান এবং জীববৈচিত্র্যের বিপুল সমারোহকে পুঁজি করে কুকরি-মুকরি ভিত্তিক পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার দাবি অনেক দিনের।