মেইন ম্যেনু

ভোলার ৩ পৌর নির্বাচন : আওয়ামীলীগ মাঠে, প্রস্তুতি বিএনপির

পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পরেই ভোলায় আওয়ামী লীগের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা পুরোদমে মাঠে নেমে পড়েছেন। মেয়র ও কাউন্সিলর পদে দলীয় প্রার্থীতাও চূড়ান্ত করেছেন।

জেলা আওয়ামী লীগ সূত্র জানা গেছে, ভোলা পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই জেলা আওয়ামী লীগ দলীয় মেয়র ও কাউন্সিলর পদে প্রার্থীরা নির্বাচনী মাঠে। আর তফসিল ঘোষণার পর পরেই নির্বাচনী মাঠে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন তাঁরা। দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীর পক্ষে একাধিকবার শোডাউন করেছে।

নির্বাচন কমিশন গত মঙ্গলবার পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করার পর ভোলায় সরব হয়ে ওঠে আওয়ামী লীগ দলীয় মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী ও তাঁদের সমর্থকরা। ভোলা সদর, বোরহানউদ্দিন এবং দৌলতখান পৌরসভার নির্বাচন আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। তাই নির্বাচন কমিশনকে অভিনন্দন জানিয়ে ওই তিন পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী এবং তাঁদের কর্মী-সমর্থকরা মঙ্গলবার রাতে মিছিল করেছে।

পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে আওয়ামী লীগদলীয় মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা তাঁদের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে স্ব-স্ব এলাকা থেকে মিছিল সহকারে দলের কার্যালয়ে সমবেত হন। পরে রাতেই দলীয় কার্যালয় থেকে বিশাল মিছিল প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। দলের সম্ভাব্য কাউন্সিলররা মিছিলে নেতৃত্ব দেন। এ সময় জেলা সদরসহ তিনটি পৌরসভার বিভিন্ন অলি-গলি মিছিলে মিছিলে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে।

আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে ভোলায় যেন নির্বাচনী আমেজ শুরু হয়ে গেছে। নির্বাচনী মাঠে পুরোদমে নেমে পড়েছেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা। দলের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীও চূড়ান্ত করা হয়েছে। মেয়র ও কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে শনিবার সকালে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে এক জরুরি বৈঠকে বসেন দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

ওই বৈঠকে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ভোলা পৌরসভায় মোঃ মনিরুজ্জামান মনির, বোরহানউদ্দিন পৌরসভায় মোঃ রফিকুল ইসলাম ও দৌলতখান পৌরসভায় মোঃ খায়রুল হাসান খোকনকে দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়। যেহেতু কাউন্সিলর পদে নির্দলীয় নির্বাচন হবে, তাই কাউন্সিলর পদে এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।

এ সময় ভোলা-২ আসনের এমপি আলী আজম মুকুল, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ প্রশাসক আব্দুল মমিন টুলু, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বোরহানউদ্দিন উপজেলা চেয়ারম্যান মহব্বত জান চৌধুরী, ভোলা সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন, ভোলা পৌরসভার মেয়র মো. মনিরুজ্জামান, দৌলতখান উপজেলা চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম খানসহ জেলা ও বিভিন্ন উপজেলার আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে বিএনপিও বসে নেই। শনিবার বিকেলে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে মনোনয়নের বিষয়টি চূড়ান্ত করে দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেন ভোলা জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম নবী আলমগীর।
এ সময় জেলা বিএনপির সহসভাপতি আমিনুল ইসলাম খান, সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফারুক মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক হারুন অর রশিদ ট্রুম্যান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ এনামুল হক, বিএনপি নেতা আব্দুর রব আখন্দসহ দলের সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিল। দলের তৃনমূল নেতাকর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে এ মনোনয়নের বিষয়টি চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়। মনোনয়নের বিষয়টি দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে পাঠানো হবে বলেও জানান জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

মেয়র ও কাউন্সিলর পদে দলীয় প্রার্থীতা চূড়ান্ত করে। আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি থেকে মেয়র পদে ভোলা পৌরসভায় জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক হারুন অর রশিদ ট্রুম্যান, বোরহানউদ্দিন পৌরসভায় পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোঃ মনিরুজ্জামান কবির ও দৌলতখান পৌরসভায় উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি আনোয়ার হোসেন কাকনকে দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়।

তবে, কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম এ মুহূর্তে প্রকাশ করতে চাচ্ছে না দলের নেতারা। পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে প্রস্তুতি নিচ্ছে দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরাও।
এখনও বিএনপি পুরোদমে মাঠে নামেননি। দলের তৃনমূল নেতাকর্মীরা দলের নীতিনির্ধারক ও শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশের অপেক্ষায় রয়েছেন।