মেইন ম্যেনু

ভোলার ৪৬১ কেন্দ্রের মধ্যে ৪১৫ ঝুঁকিপূর্ণ

ফজলে আলম, ভোলা সংবাদদাতা: ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংস হয়ে উঠেছে ভোলার নির্বাচনী মাঠ। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোলার ৪২টি ইউনিয়নের ৪৬১টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৪১৫টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

এর মধ্যে বোরহানউদ্দিন ও তজুমদ্দিন উপজেলার সব কয়টি ভোট কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ। শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে নেওয়া হয়েছে ৪ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। প্রতিটি নির্বাচনীও কেন্দ্রগুলোতে পাঠানো হচ্ছে নির্বাচনী সরঞ্জাম। এদিকে রোববার রাতে ভোলার গোয়েন্দা শাখা থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোর মধ্যে ভোলা সদরের ১০টি ইউনিয়নের ১১৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৯৯টি ঝুঁকিপূণ, দৌলতখান উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ৫৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪৯টি ঝুঁকিপূণ, বোরহানউদ্দিনের ৯টি ইউনিয়নের ৯৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ৯৯টি ঝুঁকিপূণ, তজুমদ্দিন উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের ৪৬টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪৬টি ঝুঁকিপূণ, মনপুরা উপজেলার একটি ইউনিয়নের ১৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪টি ঝুঁকিপূণ, লালমোহন উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের ৫০টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪৫টি ও চরফ্যাশন উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৮৬টি কেন্দ্রের মধ্যে ৬১টি ভোট কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ।

ভোলার জেলা প্রশাসক মোঃ সেলিম উদ্দিন বলেন, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।
ইতোমধ্যেই নির্বাচনী এলাকায় পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সহস্রাধিক সদস্যসহ, ২ প্লাটুন র্যাব, ১৭ প্লাটুন বিজিবি ও ৭ প্লাটুন কোস্টগার্ড মোতায়েন করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, ঝুঁকিপূণ কেন্দ্রগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন থাকবে। এছাড়াও সব কেন্দ্রেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপর থাকবে।

অন্যদিকে, প্রতিদিনই ঘটছে সহিংসতার ঘটনা। কিছুদিন ধরে অস্ত্র ও বোমা উদ্ধারসহ বিচ্ছিন্ন সহিসংতায় কমপক্ষে আহত হয়েছে ৩ শতাধিক কর্মী সমর্থক।

এছাড়াও এক ইউপি সদস্য প্রার্থীর হাতের কজ্বি কেটে নিয়ে গেছে প্রতিপক্ষরা। এ নিয়ে আতঙ্ক আর উৎকন্ঠা ছড়িয়ে পড়েছে ভোলার নির্বাচনীও ইউনিয়নগুলোতে।