মেইন ম্যেনু

ভোলায় ঈদ, পূজা,মা ইলিশ রক্ষায় জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

ভোলায় ঈদ ও শারদীয় দূর্গা পূজা এবং মা ইলিশ রক্ষায় এক বিশেষ জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ঐসভায় সকলকে সাথে নিয়ে সকল ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলার পাশাপাশি সবাইকে সহযোগীতা করার আহবান জানানো হয়। আজ ২০সেপ্টম্বর রোববার সকালে ভোলার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মোঃ সেলিম রেজার সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বক্তারা বলেন,কোরবানীর ঈদ ও শারদীয় দূর্গা পূজার সময় আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে প্রশাসনের বিশেস নজরদারী করতে হবে। এছাড়া আগামী ২৫সেপ্টম্বর থেকে মা ইলিশ রক্ষায় কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে। মা ইলিশ ধরার পর জব্দ নয়,ধরা বন্ধ করতে হবে। জব্দ করার পর কোন লাভ হয় না। তা অনেকের বাসায় চলে যায়।

তাতে সরকারের নেয়া মা ইলিশ রক্ষার কোন কার্যক্রম বাস্তবে সফলতার মুখ দেখে না। তাই যে কোন ভাবেই হোক নদীতেই এই মাছ ধরা বন্ধ করতে হবে। এছাড়া শহরে মাদকের সংখ্যা ক্রমান্বয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। যুব সমাজ ও শিক্ষার্থীরা এখন মাদকের দিকে ঝুকে পরছে। তাই মাদক থেকে যুব সমাজসহ শিক্ষার্থীদেরর রক্ষায় প্রশাসনের অভিযান জোরদার করতে হবে। ভোলার ইলিশ্, বোরহানউদ্দিনের হাকিমুদ্দিন,ভেদুরিয়াসহ বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে ইয়াবাসহ মাদক ভোলায় ঢুকছে বলে বক্তারা উল্লেখ করেন। এছাড়া সব চেয়ে বেশি জোরদেয়া হয়,কোরবানী সামনে রেখে হলুদ,মরচি এর মধ্যে বিষাক্ত রং আর অষাধ্য মিশানো হয়। ভোলার খালপাড়ে তিনটি মিল রয়েছে,যারা এসব ভাঙ্গায়। গোপনে খবর নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য বিশেষ আবেদন আদেন করা হয়। শহরের যানজট দুর করার দাবী তুলে ধরা হয়।

এছাড়া বাংলাস্কুল ও কালী বাড়ি রোডে ট্রাকসহ ভারী ও নিষিদ্ধ গাড়ী চলাচল নিষিদ্ধ করা হলেও সেগুলো চলাচল করছে আর প্রতিনিয়ম দূর্ঘটনা হচ্ছে। একই সাথে লালমোহন উপজেলারর থানার মোর নিষিদ্ধ গাড়ীর দখলে থাকে সেটা পরিস্কার রাখার দাবী জানানো হয় সভা থেকে। একই সাথে জেলার মনপুরায় রেজিস্টেশনবিহীন মটরসাইকেল কয়েকশত চলছে। পুলিশ ধরছে না বলেও অভিযোগ করা হয়।

সভায় মনপুরা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সেলিনা চৌধুরী,তজুমদ্দিন উপজেলা চেয়ারম্যান অহিদুল্ল্যাহ জসিম,জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার মোঃ শফিকুল ইসলাম,জেলা মৎস্য কর্মকর্তা প্রীতিষ কুমারসহ প্রায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং সকল থানাও ওসিরা উপস্থিত ছিলেন সভায়।

এসব বক্তব্য শোনার পর পুলিশ সুপার মোঃ মনিরুজ্জামান মনির বলেন,রেজিস্টেশন বিহীন যত মটরসাইকেল আছে,তা সবগুলো আটক করা হবে। কোন ধরনের ছাড় দেয়া হবে না। এছাড়া ফিটনেসবিহীন গাড়ী ও বাসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হচ্ছে না,কারন তাদেরকে বার বার বলার পরেও কোন সহযোগীতা করছে না। তাদেরকে বলা হয়েছে প্রতিটি বাসের তাদের সকল কাগজপত্র রাখার জন্য। তবে এটা তারা করছেন না।

মাদকের বিরুদ্ধে কোন ধরনের আপোষ নয়,যে কোন মূল্যেই হোক না কেন মাদকমুক্ত করা হবে ভোলাকে। মা ইলিশ রক্ষায় মৎস্য বিভাগের ফান্ড আছে,তারা সহযোগীতা করবেন বাকী সবাইকে। তবে পুলিশ, মাজিষ্ট্রেট, কোস্টগার্ড আর মৎস্য বিভাগ মিলে এবার মা ইলিশ রক্ষায় কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। জেলা প্রশাসক মোঃ সেলিম রেজা বলেন,একা কারো পক্ষেই এসব করা সম্ভব নয়।

এজন্য সকলের সহযোগীতা করা প্রয়োজন। একই সাথে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে বিষাক্ত হলুদ ও মরিচ গুড়াসহ সকল ধরনের অন্যায় বন্ধ করা হবে। ঈদে ঘরমূখী মানুষের নিরাপত্তায় বিশেষ ববস্থা গ্রহন করার কথা ব্যক্ত করেন তিনি।