মেইন ম্যেনু

মধ্যরাতে প্রকম্পিত সারা দেশ

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টা। হঠাৎ করে কেঁপে উঠলো রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশ। না, আবার কোনো ভূমিকম্প নয়। আতঙ্ক নয়। উল্লাস, উদযাপনের হর্ষধ্বনি, ভারত বধের জয়ধ্বনিতে কেঁপে উঠল সারা দেশ।

বিতর্কিত আম্পায়ারিংয়ের শিকার হয়ে বাংলাদেশ গত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে বিদায় নিয়েছিল। কিন্তু নিজেদের মাটিতে সেই বিদায়ের মধুর প্রতিশোধ নিতে ভুল করেনি টাইগাররা। বৃহস্পতিবার তিন ওয়ানডের সিরিজের প্রথমটিতে ভারতকে ৭৯ রানে বধ করল বাংলাদেশ।

অবিস্মরণীয় এ জয়ের কয়েক মুহূর্তের মধ্যে টিএসসি পরিণত হয় জনসমুদ্রে। ভারতের শেষ উইকেট তুলে নেওয়ার পর পরই টিএসসি হয়ে ওঠে জনসমুদ্র। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল থেকে আনন্দ মিছিল বের করে শিক্ষার্থীরা।

তা ছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকেও ক্রিকেটপ্রেমীরা এসে ভিড় জমায় টিএসসির রাজু ভাস্কর্যের সামনে। সবার মুখে বিজয়ের হাসি আর আনন্দ-স্লোগান। বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে গানে আর স্লোগানে অভিনন্দন জানায় রাজধানীবাসী।

টিএসসিতে আনন্দরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মাইনুল হাসান বলেন, ‘বিশ্বকাপে পরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশকে হারিয়ে দিলেও সময়ের ব্যবধানে আমরা তার সঠিক জবাব দিতে সক্ষম হয়েছি। আমার সত্যিই ভালো লাগছে। এ মজা মুখে বলে শেষ করা যাবে না। অভিনন্দন টিম বাংলাদেশ।’

মাশরাফিবাহিনী ভারতকে পরাজিত করার পর পরই ধানমন্ডি, গুলশান, মিরপুর, পুরান ঢাকাসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বিজয় মিছিলের খবর পাওয়া গেছে। কিশোর থেকে শুরু করে যুবক-যুবতী ও মধ্যবয়সীরা রাস্তায় নেমে পড়েন ঢাক-ঢোল, বাদ্যযন্ত্র নিয়ে। তারা জাতীয় সঙ্গীতসহ নানা দেশাত্মবোধক গানের মাধ্যমে টাইগারদের অভিনন্দন জানান। এ সময় অনেককেই জাতীয় পতাকা বহন করতে দেখা যায়। অনেকে আবার রঙ ছিটিয়ে বিজয় উৎসবে মেতে ওঠেন।

ভারত বধে বিজয় মিছিলের খবর পাওয়া গেছে বন্দর নগরী চট্টগ্রাম, বরিশাল, রাজশাহী, সিলেট, খুলনা, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। ক্রিকেটপ্রেমীরা এসব অঞ্চলে বাংলাদেশের জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের নামে বিভিন্ন স্লোগান দেন এবং নেচে-গেয়ে আনন্দ উদযাপন করেন।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র সোলায়মান সাইফ বলেন, ‘আজকের দিনটি আমাদের জন্য অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে। ভারতকে এভাবে হারাতে পেরে আমরা সত্যি খুশি। আমরা তাদেরকে বুঝিয়ে দিয়েছে, বিশ্বকাপের সেমি ফাইনালে খেলার যোগ্যতা আমাদের ছিল এবং কোয়ার্টার ফাইনালে বিতর্কিত আম্পায়ারিং না হলে আমরাই ভারতকে পরাজিত করতাম।’