মেইন ম্যেনু

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন:

মনোনয়ন না পেয়ে এমপিকে কটুক্তি করায় আওয়ামী নেতা লাঞ্ছিত, মোটরসাইকেল ভাংচুর

মোঃ শামীম আখতার, উপজেলা প্রতিনিধি, মিঠাপুকুর (রংপুর)॥ রংপুরের মিঠাপুকুরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় স্থানীয় সংসদ সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি করায় জনরোষের শীকার হয়েছেন খোড়াগাছ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আকতারুল ইসলাম। তাকে লাঞ্ছিত ও মোটরসাইকেল ভাংচুর করে পুকুরে ফেলে দিয়েছে ক্ষুদ্ধ নেতাকর্মীরা। রোববার বিকেলে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এ ঘটনাটি ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, খোড়াগাছ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আকতারুল ইসলাম মোটরসাইকেল যোগে মিঠাপুকুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে আসেন। সেখানে তিনি তাকে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন না দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী ও স্থানীয় এমপিকে নিয়ে বিষেদগার করেন। এ নিয়ে উপস্থিত লোকজন ও দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে তার কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তাকে লাঞ্ছিত করে তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি ভাংচুর করে উপজেলা পরিষদের পুকুরে ফেলে দেওয়া হয়। পরে তিনি সেখান থেকে পালিয়ে যান।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে উপজেলা যুব লীগের আহ্বায়ক শাহ্ আসাদুজ্জামান হোসেন ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম তুহিন বলেন, খোড়াগাছ ইউনিয়ন আ’লীগ সাবেক সম্পাদক আকতার হোসেন উপজেলা পরিষদ চত্বরে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও এমপি এইচএন আশিকুর রহমানকে নিয়ে কটুক্তি করায় জনসাধারন তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়। এ কারনে বিক্ষুব্ধ জনতা তাকে লাঞ্ছিত ও তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি ভাংচুর করেছে। আওয়ামী মনা কেউ এ ঘটনার সাথে জড়িত নয় বলেও দাবি করেন তারা। এ ব্যাপরে যোগাযোগ করা হলে অভিযুক্ত ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আকতারুল ইসলামের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

উল্লেখ্য, বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে খোড়াগাছ ইউনিয়নে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক নুর আলম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদন্দ্বি ছিলেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আসাদুজ্জামান। ওই নির্বাচনে খোড়াগাছ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আক্তারুল ইসলাম মাত্র ১১শ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছিলেন। এমতাবস্থায়, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পূর্বের নির্বাচনে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী আসাদুজ্জামানকে মনোনয়নের জন্য প্রস্তাব করে নির্বাচন পরিচালনা যাচাই-বাচাই কমিটি। একারণে জনবিচ্ছিন্ন আক্তারুল ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও মিঠাপুকুরের এমপি এইচএন আশিকুর রহমানকে নিয়ে কটুক্তি করেন। এতে সাধারন নেতাকর্মী ও জনসাধারনের মাঝে চরম অসন্তোষের সৃষ্টি হয়।