মেইন ম্যেনু

ভাগ হচ্ছে তিন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়

সরকারি কাজের গতি বাড়াতে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় ভাগ হচ্ছে। এটি এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। মন্ত্রণালয় তিনটি ভাগের অনুশাসন দিয়ে রবিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পৃথক পৃথক তিনটি চিঠি মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে দেয়া হয়েছে। খুব শিগগিরই এই প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় তোলা হবে। মন্ত্রিসভা অনুমোদন দিলেই জারি হবে প্রজ্ঞাপন।

ভাগ হতে যাওয়া তিন মন্ত্রণালয় হচ্ছে- শিক্ষা, স্বরাষ্ট্র, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ। তবে এখনো স্থানীয় সরকার, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় ভাগের চিঠি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দেয়া হয়নি।

প্রশাসনিক সংস্কারের অংশ হিসেবে মন্ত্রণালয়গুলোকে ভাগ করে প্রতিটিতে করা হচ্ছে দুটি বিভাগ। প্রতিটি বিভাগের দায়িত্বে থাকবেন একজন সচিব। এ জন্য সৃষ্টি করা হবে সচিবের পাঁচটি নতুন পদ। প্রতিটি মন্ত্রণালয়ে একজন পূর্ণ মন্ত্রীর পাশাপাশি প্রত্যেক বিভাগের জন্য একজন করে প্রতিমন্ত্রী নিয়োগ দেয়ারও পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের চিঠিতে বলা হয়েছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দুটি বিভাগ হবে। এর মধ্যে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী পরিচালনা ও তদারকিতে থাকবে একটি বিভাগ। রাজনৈতিক বিষয় ছাড়াও অন্য বিভাগ পরিচালনা করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, পাসপোর্ট অধিদপ্তর। দুই বিভাগে দু’জন সচিব দায়িত্ব পালন করবেন। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ড, ফায়ার সার্ভিস, কারাগারসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান থাকবে ওই বিভাগের অন্তর্ভুক্ত। নিয়ম অনুযায়ী তাদের আর্থিক বিভাজনসহ সব ধরনের কাজ করবেন ওই বিভাগের সচিব।

স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়কেও ভাগ করে দুটি বিভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি হবে চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য বিভাগ, অন্যটি পরিবারকল্যাণ বিভাগ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরসহ চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবকিছু থাকবে চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য বিভাগের অধীনে। আর পরিবারক্ত্রল্যাণ কার্যক্রমে গঠিত নতুন একটি বিভাগ। এ বিভাগেও আলাদা একজন সচিব থাকবেন।

গত বছরের ২১ শিক্ষা মন্ত্রণালয় একাধিক বিভাগ করতে চিঠি দেয়া হয়। এরপর শিক্ষামন্ত্রণালয় থেকে প্রস্তাব পাঠানো হয়। উচ্চ শিক্ষা বিভাগে থাকছে বিশ্ববিদ্যালয় এবং মাস্টার্স, অনার্স ও ডিগ্রি কলেজ। মাধ্যমিক শিক্ষা বিভাগে থাকছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্যায়ের পর হতে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত। কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগে থাকছে সবধরনের কারিগরি, ভোকেশনাল ও মাদ্রাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।