মেইন ম্যেনু

মন্ত্রীর সফর, জানেন না স্থানীয় এমপি

নেদারল্যান্ডসের অবকাঠামো উন্নয়ন ও পরিবেশমন্ত্রী মেলানী স্যুজ ভানকে সঙ্গে নিয়ে পটুয়াখালী সদর উপজেলার ছোটবিঘাই ইউনিয়নের ভুতুমিয়া এলাকা পরিদর্শন করেন পানি সম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। কিন্তু এ বিষয়ে কিছুই জানেন না পটুয়াখালী-১ আসনের ১৪ দলীয় জোটের (জাপা) সংসদ সদস্য (এমপি) এবং জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব এ বিএ ম রুহুল আমিন হাওলাদার।

রুহুল আমিন হাওলাদারকে উপেক্ষা করে পানি সম্পদমন্ত্রীর নেদারল্যান্ডস মন্ত্রীকে নিয়ে পটুয়াখালী সফর স্থানীয় রাজনৈতিক মহলে ক্ষোভ ও মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির বিরোধের জের ধরে এমনটা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হলেও পানি সম্পদমন্ত্রী সফরটি দেখছেন তার উপর অর্পিত রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন এবং ভিনদেশী মেহমানের জন্য মেহমানদারী হিসেবে।

নেদারল্যান্ডস সরকারের অর্থায়নে বুধবার দুপুরে পটুয়াখালী সদর উপজেলার ছোটবিঘাই ইউনিয়নের ভুতুমিয়া এলাকা পরিদর্শন এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের ব্লু গোল্ড প্রকল্প ও ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন কার্যক্রম ঘুরে দেখেন নেদারল্যান্ডের অবকাঠামো উন্নয়ন ও পরিবেশমন্ত্রী মেলানী স্যুজ ভান। তিনি বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত এবং সেবাগ্রহণকারী মানুষের সঙ্গে কথা বলেন।

বাংলাদেশের পানি সম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ ছাড়াও নেদারল্যান্ডস মন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ মোহাম্মদ বেলাল, ম্যাক্স ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা স্টিভেন লি পোল ও ওকা লি পোল, কান্ট্রি ডিরেক্টর ইমাম মাহমুদ রিয়াদ প্রমুখ।

সফর সম্পর্কে পটুয়াখালী-১ আসনের ১৪ দলীয় জোটের (জাপা) সংসদ সদস্য ও জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার কিছুই জানেন না বলে মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন। তিনি জানান, মন্ত্রিত্ব গ্রহণের সময় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রীয়ভাবে শপথ বাক্য পাঠ করানো হয়। পানি সম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ তাকে না জানিয়ে তার নির্বাচনী এলাকায় অন্য দেশের মন্ত্রীকে নিয়ে সফর করা— মহামান্য রাষ্ট্রপতির পড়ানো শপথ ভঙ্গের শামিল।

MP-news

‘কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির দ্বন্দ্বের জের তার ওপর ভর করেছে’ বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

পটুয়াখালী জেলা জাপার সভাপতি খায়রুল আলম মামুন অভিযোগ করেন, সরকারি দল ও পটুয়াখালী জেলা প্রশাসন জাপার নেতাকর্মী ছাড়াও তাদের এমপিকে কোনো কর্মসূচিতেই রাখছেন না। সম্প্রতি স্বাস্থ্যমন্ত্রী নাসিম পটুয়াখালী সফর করেন। ওই সময় কোনো নিমন্ত্রণ পত্রে স্থানীয় এমপিকে রাখা হয়নি। এরপরও আওয়ামী লীগের ওই প্রভাবশালী নেতার সম্মানে দাওয়াত না পেয়েও রুহুল আমিন এমপি পটুয়াখালী পৌঁছে তার (নাসিম) সকল কর্মসূচিতে অংশ নেন।

তবে পানি সম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এই অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি জানান, সরকারের একজন মন্ত্রী হিসেবে সফর সঙ্গী হয়ে অন্য দেশের মন্ত্রীকে সম্মান দেখানো হয়েছে। যেহেতু পানি সম্পদ বিষয়ে দেখভালের জন্য নেদারল্যান্ডস মন্ত্রী পটুয়াখালী সফর করেছেন, সেহেতু তার সঙ্গে থাকা আমার দায়িত্ব।

রুহুল আমিন হাওলাদার এমপিকে না জানিয়ে এমন সফরকে কিভাবে দেখছেন— এমন প্রশ্ন এড়িয়ে যান মন্ত্রী।

পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান মোশাররফ হোসেন জানান, প্রশাসন থেকে নেদারল্যান্ডসের মন্ত্রীর আসার চিঠি পেয়েছি। কিন্তু কার্যক্রমের সিডিউল পায়নি বিধায় যাওয়া হয়নি।

রুহুল আমিনকে এ সফরে দাওয়াত না করা প্রসঙ্গে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

জেলা প্রশাসক অমিতাভ সরকার জানান, যেকোনো প্রোগ্রাম মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের শুধু জানিয়ে দেওয়া হয়। সে অনুযায়ী প্রশাসনিক দায়িত্ব পালন করা জেলা প্রশাসনের কর্তব্য।

স্থানীয় সংসদ সদস্যকে দাওয়াত না করা প্রসঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ব্লু গোল্ড প্রকল্পের কোনো কর্মকর্তা কথা বলতে রাজি হননি।



« (পূর্বের সংবাদ)