মেইন ম্যেনু

মন্দির থেকে ৭৬৯টি সোনার পাত্র হাওয়া

কেরালার বিখ্যাত শ্রী পদ্মনাভস্বামী মন্দির থেকে খোয়া গেছে ৭৬৯টি সোনার পাত্র। যার দাম আনুমানিক ১৮৬ কোটি রুপি। এ নিয়ে রাজ্যজুড়ে আলোচনা-সমালোচনার তুমুল ঝড় বইছে।

শ্রী পদ্মনাভস্বামী মন্দির দক্ষিণ ভারতের কেরালা রাজ্যের সবচেয়ে বিখ্যাত ভগবান বিষ্ণুর মন্দির। এটি কেরালার রাজধানী থিরুভানন্তপুরের পূর্ব পাশের এক দুর্গের অভ্যন্তরে অবস্থিত। মন্দিরের সম্পত্তির হিসাব দেখাশোনার জন্য দেশের প্রাক্তন শীর্ষ হিসাবরক্ষক বিনোদ রাইকে দায়িত্ব দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। বিনোদ রাইয়ের রিপোর্টেই এই সোনা না পাওয়ার খবর উঠে এসেছে। সোনার হদিশ পেতে পূর্ণাঙ্গ তদন্তের আর্জি জানিয়েছেন রাই। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি টি এস ঠাকুরের নেতৃত্বাধীন একটি বেঞ্চ খুব শিগগিরই বিষয়টি নিয়ে রাইয়ের সঙ্গে বসবেন বলে জানা গেছে।

খোয়া যাওয়া সোনার পাত্রগুলোতে নম্বর দেওয়া ছিল। ২০০২ সাল পর্যন্ত পাত্রগুলোর নম্বর ছিল ১ থেকে ১০০০ পর্যন্ত। রাই জানিয়েছেন, ২০১১ সালের ১ এপ্রিলে পাত্রের গায়ের নম্বর ছিল ‘‌১৯৮৮’‌। তার মানে মোট পাত্রের সংখ্যা ১৯৮৮টি। এর মধ্যে গয়না তৈরির জন্য ৮২২টি পাত্র গলানো হয়। এখন পড়ে রয়েছে মাত্র ৩৯৭টি। অর্থাৎ সেখান থেকে ৭৬৯টি পাত্রের হদিশ নেই। অনেকগুলো পাত্রের ছবিও পাওয়া যাচ্ছে না।

মন্দিরের প্রশাসনিক কমিটি দুর্বল বলেও জানিয়েছেন রাই । এর বদলে তিনি সরকারের সচিব পর্যায়ের কোনও আমলা, কেরালার রাজস্ব দপ্তরের প্রতিনিধি এবং ত্রিবাঙ্কুরের রাজ পরিবারের প্রতিনিধিকে রেখে নতুন কমিটি গড়তে পরামর্শ দিয়েছেন। ‌‌‌