মেইন ম্যেনু

মস্ত রেকর্ডের পথে ‘বাহুবলী’

‘বাহুবলী’ ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে এক অন্যতম নাম হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছে। টিজার, ট্রেলার আর পোস্টার দিয়ে অভিনব প্রচার-প্রচারণাতেই মস্ত রেকর্ডের ইঙ্গিত দিচ্ছিলো ছবিটি। অবশেষে ১০ জুলাই মুক্তি পেল ছবিটি, আর মুক্তির প্রথম দিনে বোঝা গেল মস্ত রেকর্ডের দিকে যাচ্ছে এস এস রাজামউলের বহুল আলোচিত ছবি ‘বাহুবলী’।

জানা গেছে, ১০ জুলাই শুক্রবার অন্তত চার হাজার সিনেমা হলে একযুগে মুক্তি পেয়েছে বাহুবলী। দক্ষিণ ভারতেই ছবিটি অন্তত দু’হাজার হলে মুক্তি পেয়েছে। মুক্তির আগেই ‘বাহুবলি’র জয়জয়কার দেখে সিনেমা ক্রিটিকরা বলেছিলেন যে ভারতের ইতিহাসে অন্যতম রেকর্ড সৃষ্টি করা ছবি হতে যাচ্ছে এটি। মুক্তির প্রথম দিনে সেই ইঙ্গিতই যেন পাওয়া গেল।

তামিল, তেলেগু, হিন্দি এবং মালায়লাম ভাষায় ছবিটি রিলিজ দেয়া হয়। এর মধ্যে তেলেগু ভাষায় ছবিটি সবচেয়ে বেশী আয় করেছে। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে তেলেগু ভার্সনে ছবিটি প্রথম দিনে অন্তত ২৩ থেকে ২৫ কোটি রূপি আয় করেছে। যা তেলেগু ছবির ইতিহাসে খুবই বিরল!

অন্যদিকে হিন্দি ভার্সনে প্রথম দিনের আয় সম্পর্কে কিছু না জানা গেলেও যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম দিনে ছবিটি ভালই উম্মাদনা তৈরি করতে পেরেছে। যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম দিনে ‘বাহুবলী’ আয় করেছে ১.২৯ মিলিয়ন ডলার। যা যুক্তরাষ্ট্রে এর আগে কোনো হিন্দি সিনেমা এক সপ্তাহেও আয় করতে পারেনি।

নানা দিক দিয়েই ‘চমক’ সৃষ্টি করে চলেছে ‘বাহুবলী’। আর ‘চমক’ সৃষ্টি করবেই বা না কেন! কারণ ‘বাহুবলি- দ্য বিগিনিং’ ছবিটিতে খরচ হয়েছে প্রায় আড়াইশো কোটি রুপি! যা এখন পর্যন্ত বলিউডে রেকর্ড। ‘বাহুবলি- দ্য বিগিনিং’ ছবিটি তামিল হলেও হিন্দি সংস্করণের জন্য প্রযোজনা করছে করন যোহরের ধর্ম প্রোডাকশন, তাই ‘বাহুবলি’কে আর আঞ্চলিক ছবি বলা যাচ্ছে না। তবে যে যায় বলুক, ছবিটি যে মস্ত রেকর্ডের পথে যাচ্ছে এ বিষয়ে কোনো সন্দেহই নেই!