মেইন ম্যেনু

মহৎ উদ্দেশ্যে তারকা ক্রিকেটারদের মিলনমেলা

ব্রায়ান লারা, গ্রেম স্মিথ, মাহেলা জয়াবর্ধনে, বীরেন্দর শেবাগ, মহেন্দ্র সিং ধোনি, হার্শেল গিবস, ম্যাথু হেইডেন প্রত্যেকেই স্বমহিমায় উদ্ভাসিত, স্বনামধন্য। এই তারকাদের পদচারণে আরেকবার মুখর হয়ে উঠল লন্ডনের বিখ্যাত মাঠ ওভাল। উদ্দেশ্যটা মহৎ যুদ্ধাহত ব্রিটিশ সেনাদের সাহায্যার্থে অর্থ সংগ্রহ করা। লক্ষ্যপূরণে বৃহস্পতিবার মাঠে নেমেছিলেন বর্তমান ও সাবেক ক্রিকেট তারকারা। ‘চ্যারিটি’ ক্রিকেট ম্যাচটি আয়োজন করা হয়েছিল ‘হেল্প ফর হিরোস’ শিরোনামকে সামনে রেখে। মাঠের লড়াইয়ে সত্যিকারের নায়কের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন ভারতের ওয়ানডে অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। ২২ বলে অপরাজিত ৩৮ রানের আক্রমণাত্মক ইনিংস খেলে হেল্প ফর হিরোস একাদশকে পাঁচ উইকেটের জয় এনে দিয়েছেন তিনি।

হেল্প ফর হিরোস একাদশে ধোনি ছাড়াও খেলেছেন শেবাগ, অ্যান্ড্রু স্ট্রাউস, ড্যারেন গফ, গ্রেম সোয়ান, গিবস, ড্যামিয়েন মার্টিনের মতো তারকারা। আর তাঁদের প্রতিপক্ষ বিশ্ব একাদশে ছিলেন ম্যাথু হেইডেন, গ্রেম স্মিথ, লারা, জয়াবর্ধনে, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, টিম সাউদি। প্রদর্শনী ম্যাচ হলেও সবাই মিলে জমজমাট একটা টি-টোয়েন্টি ম্যাচ উপহার দিয়েছেন দর্শকদের। যে উদ্দেশ্যে ম্যাচটি আয়োজন করা হয়েছিল সেটাও সফল। তিন লাখ পাউন্ড এসেছে এই ম্যাচ থেকে। যার পুরোটাই যাবে যুদ্ধাহত ব্রিটিশ সেনা ও তাঁদের পরিবারের কাছে।

প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে ১৫৮ রান করেছিল বিশ্ব একাদশ। দলের বড় সংগ্রহে ভালো অবদান ছিল হেইডেন, জয়াবর্ধনে ও ম্যাককালামের। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোভাবেই করেছিল হেল্প ফর হিরোস একাদশ। প্রথম ছয় ওভারেই ৬৩ রান তুলে ফেলেছিলেন শেবাগ ও স্ট্রাউস। তবে খুব দ্রুত এই দুই ব্যাটসম্যান ও ড্যামিয়েন মার্টিনের উইকেট হারিয়ে চাপের মুখে পড়ে যায় হিরোস একাদশ। শেষ ১০ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৮২ রান। কঠিন সময়ে দৃঢ়তার সঙ্গে ব্যাটিং করে তিন বল হাতে রেখেই দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে গেছেন ধোনি। ম্যাচসেরার পুরস্কার অনুমিতভাবেই উঠেছে ভারতের ২০১১ বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়কের হাতে।