মেইন ম্যেনু

মাত্র ৪টি লক্ষণে বুঝে নিন কেউ আপনার ফায়দা তুলেছে কিনা

কেউ আপনাকে নিজের সুবিধার জন্য ব্যবহার করছে তা জানতে পারলে আপনার কেমন লাগবে বলুন তো? একেবারেই ভালো নয় তা সকলেই বলবেন। কিন্তু আপনি জানেন কি কিছু মানুষ রয়েছে যারা খুবই সূক্ষ্ম কৌশল খাটিয়ে ঠিকই ব্যবহার করে চলেছেন আপনাকে, আপনারই অজান্তে। এই ধরণের মানুষের মিষ্টি কথায় ভুলবেন না একেবারেই। বরং লক্ষণ দেখে বুঝে নিন তিনি আপনাকে আসলেই ব্যবহার করছেন কি না এবং নিজেকে তার থেকে দূরেই সরিয়ে দিন।

১) দরকারের সময় আপনার খোঁজ পড়ে কিন্তু আপনার দরকারে খুঁজে পান না

যারা আপনাকে ব্যবহার করতে চান তারা বেশীরভাগ সময়ই থাকেন সুসময়ের বন্ধু। তাদের প্রয়োজনে সব সময়ই আপনাকে থাকতে হচ্ছে বা থাকতে বাধ্য করা হচ্ছে, কিন্তু আপনার প্রয়োজনে কাউকে পাবেন না। বরং উলটো প্রয়োজনের সময় তাদের অতিরিক্ত মিষ্টি ভাষায় না সূচক কথাতেই আপনি গলে যাচ্ছেন। এতে ভুলবেন না মোটেও। কারণ এই ধরণের মানুষ আপনাকে ব্যবহার করছেন।

২) তিনি খুব ভালো করেই জানেন কীভাবে আপনাকে দিয়ে হ্যাঁ বলাতে হয়

যাকে সহজ ভাষায় বলা হয় ‘ইমোশনাল ব্ল্যাকমেল’ যা আপনার সাথে হরহামেশাই হয়ে চলেছে তার মাধ্যমে। তিনি খুব ভালো করেই জানেন কোন পরিস্থিতিতে পড়লে আপনার না কে হ্যাঁ তে রূপান্তরিত করা সম্ভব। এবং তিনি এই ব্যাপারটাকেই হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেন প্রতিবার, আর আপনি নিজেও নিজের অজান্তেই ব্যবহৃত হন। নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ আনুন, কারো ইমোশনাল ব্ল্যাকমেলের কারণে অনুরোধে ঢেঁকী গেলার মতো পরিস্থিতিতে ফাঁসতে যাবেন না একেবারেই।

৩) তার জন্য প্রায় সকলের সামনে আপনি ‘খারাপ ব্যক্তি’ উপাধি পেয়ে বসেন

যিনি আপনাকে ব্যবহার করছেন তিনি সবসময় আপনাকে নিজের ঢাল হিসেবেই ব্যবহার করেন। আপনি যত কিছুই করুন না কেন তার ফলাফল তার পক্ষে এবং আপনার বিপক্ষে যেতে থাকবে। এর কারণ হচ্ছে তিনি নিজের দিকে পরিস্থিতি ঘুরিয়ে নিতে খুব ভালো করেই দক্ষ এবং আপনি তার মাধ্যমে ব্যবহৃত হচ্ছেন বলে তার সকল দোষের ভাগীদার হিসেবে মানুষজন আপনাকেই দেখছেন। এই ধরণের পরিস্থিতিতে পড়লে দ্বিতীয়বার কখনোই নিজেকে তার ধারে কাছে ঘেঁষতে দেবেন না।

৪) তিনি দুমুখো মানুষ যার প্রমাণ আপনি আগে পেয়েছেন

আপনার সামনে খুবই বেচারা এবং অসহায় ভান করে থাকলেও অন্য সব স্থানে ঠিকই তেজস্বী ভূমিকায় থাকেন এরা। আপনার সামনে এই ভান করার একমাত্র কারণ হচ্ছে আপনাকে আবেগী করে তোলা অন্য কিছুই নয়। আপনি তার ছলে ভুলে আবেগের বশবর্তী হয়ে তাকে সাহায্য করেই চলেছেন। যদি তার ভান ধরার প্রমাণ আগে পেয়ে থাকেন তাহলে দ্বিতীয়বার আপনার সামনে অসহায় করুণ মুখ নিয়ে এলে মোটেও ভুলবেন না।

সূত্র:powerofpositivity